দু-দু বার ইউকের ইন্টারভিউয়ে পাস করতে পারায় বন্ধুরা উপদেশ দিলো কল-সেন্টারে কিছুদিন অভিজ্ঞতা নিতে। সফ্টওয়ার প্রফেশনাল হবার স্বপ্নে ঘি ঢেলে, কলকাতার একনামি কল-সেন্টার জয়েন করলাম। কিন্তু ভাগ্যের দোষ। মাস ৬ যেতে না যেতেই তালা ঝোলালো। অনেক ভেবে চলে এলাম মুম্বাই। যোগাযোগ কলকাতা থেকেই হয়েছিল। টেলিফোনে এক রাউন্ড আর মুম্বাই এসে এক রাউন্ড। পরের দিন মেডিকেল। জায়গাটা নবিমুম্বাইয়ের মিলেনিয়ম বিজনেস পার্ক। ধুলো ঢাকা কংকৃটের জঙ্গল। যাই হোক উঠেছিলাম ভাসির এক অখাদ্য হোটেলে। তাই ইন্টারভিউতে ইতিবাচক ইঙ্গিত পেতেই প্রথম চিন্তা এলো থাকার জায়গা। এমপির(মিলেনিয়ম বিজনেস পার্কের) গেটে দাঁড়িয়ে বাসের জন্য অপেক্ষা করছি, এমন সময় একটা বছর বাইশ-তেইশের এক্সিকিউটিভ ড্রেস পরা মেয়ে আমার দিকে এগিয়ে এলো। পড়নে সাদা শার্ট আর গ্রে টাইট স্লিট স্কার্ট। দুর্দান্ত কার্ভি ফিগার। তার স্কার্টের কল্যানে আসার সময় তার মাখনরংয়ের উরু নজরে লাগে। কাঁধ অবধি কোঁকরানো চুল। হাইট পাঁচ তিন কি চার। এগিয়ে এসে নিজের থেকেই আলাপ করল। জানলাম তার নাম পায়েল, পায়েল চোপড়া। অসাধারণ গলার স্বর আর কথা বলার স্টাইল। যা একি সাথে ইনোসেন্ট আর সেক্সি। তার মুখেও সেই একই সুন্দর সরলতা আর সেক্স আপিল। সেও এসেছে ইন্টারভিউ দিতে, আমাকে সে ইন্টারভিউতে দেখেছে, কিন্তু আমি স্বাভাবিক টেনশনে ওকে লক্ষ করিনি। তার পজিশন টিম লিডার। সে আগে দিল্লির এক কল-সেন্টারে দু বছর কাজ করেছে। এখন উচু পোস্টের জন্য এখানে এসেছে। তার বাড়ি ভুপাল। কথা বলতে বলতে বারবার আমার দৃষ্টি তার সুন্দর তানপুরার মতো পাছাতে গিয়ে আটকে যাচ্ছিল। তার পাতলা ঠোট দিয়ে কথা গুলো যেন হাওয়ায় ভেসে ভেসে আসছিল। হাসির ফাঁকে বাম দিকের গজদাঁতটা উঁকি দেয়। কথায় কথায় থাকার জায়গার কথা উঠল। সে বলল কোপারখেরনেতে কিছু একমডেশন পাওয়া যেতে পারে। তার সাথে সাথে এও প্রস্তাব দিলো, যদি টু বি হেইচ কে ফ্ল্যাট পাওয়া যায় তাহলে একটাই ফ্লাট দুজনে শেয়ার করা যাবে। পেলে সেটাই হবে বেস্ট আর সেটা অফিসের কাছাকাছিও হবে। প্রথমে একটু অবাক হলেও মনে পরল ছেলে-মেয়ে এক সাথে থাকা দিল্লি বা বম্বেতে কিছু অস্বাভাবিক নয়। হয়তো আমার মনের কথা ও বুঝেছিলো তাই আমাকে আস্বস্ত করতে বলল, তার এক বন্ধু এখানে কাজ করে আর সে একটা ছেলের সাথে একটা ফ্লাটে শেয়ার করে থাকে। আর দুরভাগ্য এই যে এখন সে মুম্বাইয়ের বাইরে। অ্যানুয়াল ছুটিতে নিজের বাড়িতে গেছে। সে থাকলে হয়ত জলদি কিছু ব্যবস্থা হয়ে যেত। ঠিক
করলাম কোপারখেরনের ওখানেই দেখব। মনে আসা নিয়ে উদ্যগ নিয়ে চার-পাঁচটা বাড়ি দেখাও হল কিন্তু যা আমাদের পছন্দ হয় তা হয় আমাদের সাধ্যের বাইরে নয়ত ছেলে-মেয়ে একসাথে থাকা যাবে না। একটা ফ্ল্যাট একার পক্ষে তুলনামুলক ভাবে ব্যয় সাপেক্ষ। শেষে ঘুরে ঘুরে ক্লান্ত আর নিরাস হয়ে নিজের নিজের আস্তানায় ফেরার পালা। আমি যাব ভাসি আর পায়েল যাবে কুর্লা। যাইহোক ঠিক করলাম পরের দিন আবার দেখা যাবে। নাহলে তার পরেরদিন শনিবার ছুটির দিন, সারাদিন পাওয়া যাবে। আমি ভাসি স্টেশন পর্যন্ত এলাম ওকে এগিয়ে দিতে। পায়েল চলে যেতে, পায়ে পায়ে এগিয়ে গেলাম রঘুলীলা সপিং-মল। একটা সিম কার্ড প্রয়োজন। পরের দিন দুজনেই আপয়েনমেন্ট পেলাম। যেমন কথা ছিল অন্য দিকের কিছু বাড়ি দেখা হল। সেই একই ঘটনার পুনরাবৃতি। দু-এক জনের সাথে কথা বলা হল কিন্তু তারা বেচেলার একমডেশনে রাজি নয়। আবার নিরাশা। পায়েল আমাকে আস্বস্ত করল। আমি পায়েলের সেল নম্বর চাইতে ও অদ্ভুত দৃষ্টিতে আমার দিকে দেখল। আমি হাওয়া ঠিক বুঝতে না পেরে আমার নম্বরটাই ওকে দেওয়াটাই শ্রেয় মনে করলাম। ও আমার দুটো নম্বরই নিল। যখন সেভ করছিল ওর মুখে একটা অদ্ভুত হাসি দেখলাম। ও আমাকে বলল, পরেরদিন সকালে কল করবে, তারপর সেই বুঝে প্ল্যান করা যাবে। রাত দশটা নাগাত ফোন এলো। আমার নতুন নম্বর চালু হয়েগেছে তা জানাতে। আমি সিম বদলে নিলাম। রাত বারোটা নাগাত একটা মিস কল এল। না বুঝে পাত্তা দিলাম না। নতুন নম্বরে কে আর কল করবে। ফোনটা সাইলেন্ট করে সুয়ে পরে ছিলাম। ভোররাতে যখন বাথরুম যাবার জন্য যাখন উঠলাম, দেখলাম ফোনে চারটে মিসকল। সেই অচেনা নম্বর। সকালে উঠলাম সারে-সাতটা নাগাৎ। মুখ ধুয়ে নাস্তার পথে একবার মিস্কল দিলাম ওই অচেনা নম্বরে। প্রায় সাথে সাথে কল এলো। এবার আর মিস করলাম না, সাথে সাথে তুলে নিলাম। পায়েল। প্রথমে একটু রাগ, রাত থেকে চেষ্টা করছি ফোন নিচ্ছনা কেন ? এই ধরনের অনু্যোগ। যাইহোক আমাকে ভাসি স্টেশনে যেতে বলল, কারন একটা বাড়ির সন্ধান পাওয়া গেছে, ও অল-রেডি ভাসি স্টেশনে অপেক্ষা করছে। নাস্তা মাথায় তুলে একটা অটো নিয়ে দৌড়লাম ভাসি স্টেশন। যতটুকু বিরক্তি এসেছিল। তা ওকে দেখে নিমেষে উধাও হয়ে গেল। একটা হাল্কা লেবু রঙের পাতিয়ালা পরেছে, নাকে একটা এখনকার মডার্ন নথ। একটা লম্বাটে বিন্দি। সম্ভবত চান করে এসেছে, তাই চুল খোলা আর ভিজে চকচক করছে। আমি স্বাভাবিক সৌজন্নে আমার এমন বোকামির জন্য ক্ষমা চাইলাম। ও-ও ওর ফোনে রূঢ ব্যবহারের জন্য সরি বলল। আসলে একটা আসিয়ানা না থাকলে টেনশন বোধ হয় এমনিই আসে। শেষ পর্যন্ত বাড়ি পাওয়া গেল। সানপাড়াতে একদম পামবিচ রোডের উপর ভাসি স্টেশনের থেকে প্রায় পনের-কুড়ি মিনিটের হাঁটা পথ। দুটো বাথরুম সংযুক্ত বেডরুম আর মাঝে একটা হলঘর। একটা রান্নাঘর। আমার পছন্দ মতো একটা ব্যালকনিও আছে হলের সাথে লাগোয়া। সবচেয়ে বড় পাওনা ফুল ফারনিসড ফ্ল্যাট, আর ভাড়া আমাদের সাধ্যের মধ্যে। একটাই সমস্যা হল পুলিশ ভেরিফিকেশন চাই। কিন্তু দুজন অবিবাহিত ছেলে-মেয়ে কি করে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স পাবে। কেয়ারটেকার কে বুঝিয়ে-সুঝিয়ে রফা হল, অন্তত একজনের ক্লিয়ারেন্স চাই। কটাদিন যে কিভাবে কাটল ধরা গেলনা। দুজনের আলাদা চাবি করা হল। ঘরের সব প্রয়োজনিয় সামগ্রি নেওয়া হল। ট্রেনিং শেষে আমার ডিউটি পরল সকালে ৯টা থেকে ৬টা। আর পায়েলের রাতে ১১টা থেকে সকাল ৮টা। স্বাভাবিক ভাবে উইকডেতে আমাদের দেখা হত খুব ব্যাস্ততার মধ্যে। তাই দেখা হওয়া কথা বলা সব হত উইক-এন্ডে। তাও অনেক উইক-এন্ডেই নিজেদের বন্ধু-আত্মিয় সজনদের বাড়ি যাওয়া ছিল। প্রথম প্রথম স্বাভাবিক থাকলেও ধিরে ধিরে পায়েলের কিছু অস্বাভাবিক স্বভাব আমার গোচরে এলো। ওর বেডরুমের দরজা না লাগিয়ে ন্যুড শোয়া। সারা মেঝেতে ছড়িয়ে পরে থাকা ওর সমস্ত পোষাক, এমন কি ব্রা, পেন্টি বা ওর জাঙ্গিয়া পর্যন্ত। কখনো কখনো ডিউটি যাওয়ার পথে পাতলা চাদরের ভিতর ওর সম্পুর্ন নগ্ন দেহ খোলা দরজার ফাঁক দিয়ে ধরা দিত। সেই চাদর সরে গিয়ে ওর শরীরের কিছু কিছু লোভনিয় অংশও চোখে পরত। দুর্ঘটনা থেকে বাঁচতে তারাতারি পালিয়ে যেতাম, অফিস। এছাড়াও কখনো কখনো আমার ঊপস্থিতি সম্পুর্ন অগ্রাহ্য করে পাতলা, অর্ধস্বচ্ছ্ব, অতি সংক্ষিপ্ত পোশাকেও এ ঘর ও ঘর করত। কখনো যে ওকে কিছু করতে ইচ্ছা হত না তা নয়। বরং কখনো কখনো আমার ভিতরের পশুটা জেগে উঠত। মনে হত ওকে জাপ্টে মাটিতে ফেলে… ওর ঐ পোষাক খুলে… আমার ঠোট, দাঁত আর হাত দিয়ে ওর সারা শরীরে আমার প্রবল উপস্থিতির জানান দিই। আমার যৌবনের খিদেটা ওর শরীর দিয়ে মিটিয়ে নিই। কিন্তু অন্য আসঙ্কায় পিছিয়ে আসতাম। যদি ওর সম্মতি না থাকে, যদি চলে যায়, তাহলে ওর ঐ লোভনিয় শরীর আমার চোখের থেকে চির দিনের মত চলে যাবে। ওর শরীরের সবচেয়ে লোভনীয় ছিল ওর পিঠ। ঠিক যেন বাঁকানো তীরের ফলা। ফর্ষা, কমনীয়, নরম মাখনের মতো পিঠে কোমর থেকে একটা সরু গভীর খাদ পিঠের মাঝ বরাবর উঠে ধিরে ধিরে কোথায় যেন হারিয়ে গেছে। ওর বুক গুলো ছিল ঠিক যেন মালভুমির পাহারের মত গোল খাড়া খাড়া। ওর ওই খাদ আমার অতি পরিচিত হলেও ওখান থেকে চোখ ফেরানো আমার কাছে খুব কষ্টকর ছিল। প্রথম প্রথম ভীষণ অস্বস্তি হলেও ধিরে ধিরে অভ্যাস হয়ে গেল। একটা সময় এল যে, ওর শরীর আমি চোখ দিয়ে খেতে শুরু করলাম, কি সাংঘাতিক তার নেশা। ধিরে ধিরে উইক-এন্ডে আমাদের দুজনেরই আত্মিয় বন্ধুদের বাড়ি যাওয়া কমে এলো। তখন দুজনে তাস বা দাবা খেলে টাইমপাস করতাম না হলে সিনেমা যেতাম। পায়েল ছিল খুব সাংঘাতিক টিজার। এই সঙ্গে বলে রাখি স্কুলে-কলেজে আমি ছিলাম দাবা চাম্পিয়ন। কিন্তু ওর সাথে দাবা খেলতে বসলে আমার হার অনিবার্য ছিল। কখনো কখনো এমন ভাব করত যেন ও একটা পাঁচ-ছ বছরের বাচ্চা মেয়ে। আর বসিয়ে বসিয়ে ও আমার কামনা বাসনাকে রীতিমত ওর তালে নাচাত। খেলতে খেলতে ওর অর্ধস্বচ্ছ্ব কাপড় ইচ্ছাকৃত ভাবে এমন ভাবে ঢলে পড়ত যেন সেটা খুবই স্বাভাবিক কিছু। খেলতে বসে আমার চোখ পরে থাকত ওর নব্বই শতাংস খোলা বুকের ওপর। আর মন, লুকোচুরি খেলতে থাকা সবচেয়ে লোভনিয় বাকি অংশের কল্পনায় বিভর থাকত। কেমন সুন্দর, কতটা সুন্দর, কতটা লম্বা, কতটা শক্ত; কি রঙ, গোলাপী না বাদামি, না আরো গাঢ়। কখনো ওর থেকে একটা সুন্দর নেশা ধরানোর মত সোঁদা গন্ধ পেতাম, চোখ সয়ংক্রিয় ভাবে চলে যেত নিচে। ওর লম্বাটে গভীর নাভি, ওর নরম কোমর, মাথা খারাপ করা কাঁখের ভাঁজ নিয়ে ও আমার ভেতরে জানিনা কি ভাবে যেন খেলা করত। ওর পাতলা টাইট হাফপেন্টের ভেতর অস্পষ্ঠ যোনির ঠোট আমার চোখে স্পষ্ঠ হয়ে উঠত। প্রায় সময়েই খেলা শেষ হবার আগেই আমার সংযমের বাঁধ ভেঙ্গে আমার আগ্নেয়গিরিতে বিস্ফোরণ হয়ে যেত। একরাস লজ্জা, অসহায়তা নিয়ে আমার খেলা শেষ হত। খেলা শেষে জিজ্ঞাষা করত আমার মুখ লাল কেন। এমন ভাব করত যেন ও জানেনা কেন। মজা করে আমাকে উপদেষ দিত, খেলা নিয়ে এত সিরিয়াস হওয়া উচিৎ নয়। পায়েলের একটা বড় গুন ছিল ওর রান্না, ওর রান্নার হাত ছিল অসাধারন। আর তেমনি সুন্দর ছিল ওর পরিবেশন। নিয়ম হয়েছিল অন্যান্ন দিন আমি বাজার করে রাখবো আর ও রান্না করে রাখবে। কিন্তু ছুটির দিন, ওর একটা শর্ত ছিল যে আমাকে ওর সাথে রান্নাঘরে থাকতে হবে। সাধারনত আমি কাটাকুটি করতাম আর ও বাকি সব কিছু করত। রান্নাঘরটাতে কেন জানিনা গরম খুব বেশি হত। তাই ব্রা পরত না। একটা পেটেন্ট পোষাক ছিল, সেটা পরত। পিঠ খোলা, উরু পর্যন্ত ঝুলের পাতলা গেঞ্জি কাপড়ের একটা টেপ ফ্রক। স্বাভাবিক ভাবেই রান্না করতে করতে ওর অস্পষ্ঠ শরীর ঘামে ভিজে আরো স্পষ্ঠ হয়ে উঠত। খেলার সময় যা আমার গবেশনার বিষয় হত তা রান্নাঘরে আরো স্পষ্ঠ হয়ে উঠত। রান্নাঘর আমার পছন্দর যায়গা না হলেও, ওর শরীরের নেশায় বুদ হয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা রান্নাঘরে আটকে থাকতাম। ওর শরীরের গলিপথে নাক লাগিয়ে ঘামের গন্ধ নেবার জন্য অথবা ওর পিঠের থেকে গড়িয়ে পড়া কোমলতার স্বাদ নেওয়ার জন্য যখন আমার শরীর ভেতরে ভেতরে পাগল হয়ে উঠত তখনই হঠাৎ উপরের সেল্ফ থেকে কিছু নেবার সময় ওর থং পড়া পাছার অর্ধেক বেরিয়ে পরত। রান্নাঘর থেকে বেরিয়ে প্রায়সই আমি দৌড়তাম বাথরুমে। ওর সদ্য দেখা শরীর কল্পনা করে হাল্কা না হওয়া পর্যন্ত স্বস্তি পেতাম না। মোটের ওপর পায়েল ছিল, চমৎকার, আত্মবিশ্বাসি, টিজার, দুষ্টুমিভরা, খেলুরে মেয়ে। সে জানত ঠিক কি ভাবে মায়াজাল বিস্তার করতে হয় আর গুটিয়ে তুলতে হয়। আমাকে নিয়ে ওর ঐ খেলা হয়তো ওর দুষ্টুমির একধরনের অনুশীলন ছিল। আমাদের সদর দরজায় সব সময়েই অটোমেটিক ডোর-লক থাকত। বাইরে থেকে চাবি ছাড়া দরজা খোলা যাবে না। একদিন ঘরে ফিরে আমি আমার চাবি দিয়ে মেন দরজা খুলে, হল পেরিয়ে যখন নিজের ঘরের দিকে যাচ্ছি, দেখলাম পায়েলের ঘরের দরজা হাল্কা খোলা। পায়েল সব সময় নিজের ঘর লক করে অফিস যেত। ঘরের থেকে একটা অদ্ভুত হাল্কা শব্দে ওর দরজার ফাঁকে চোখ রাখলাম। এবং চোখের সামনে যা দেখলাম তাতে আমি স্তম্ভিত। সমস্ত অনুভুতি আমার লোপ পাবার পথে। পায়েল দরজার দিকে পিঠ করে ওর বিছানায় বসে কম্পিউটারে সম্ভবত পর্ণ দেখছে। আমার সারা শরীর থরথর করে কাঁপতে শুরু করল। কানে হেডফোন থাকায় হয়তো মেন দরজা খোলার আওয়াজ পায়নি। ওকে প্রথমবার বেয়ায়ব্যাক দেখলাম। একবার ভাবলাম এই সুযোগের সদ্ব্যাবহার করি। কিন্তু কৌতুহল, ওর ঐ যৌনতা দেখার অনুসন্ধিৎসা আমার কাছে তার চেয়েও প্রবল হয়ে উঠল। দরজার ফাঁক দিয়ে ও কি দেখছে তা ঠিক ঠাওর করতে না পারলেও ওর কর্মকান্ড, এক নিষিদ্ধতার ইঙ্গিত দিল। বুঝলাম শরীরের ভীতরের আগুন প্রসমিত করতে ব্যস্ত এক হাত ওর বুকে আর এক হাত ওর যোনিতে। জানিনা কখন আমার হাত আমার জিওন কাঠিতে ব্যস্ত হয়ে উঠেছে। এমন সময়ে হঠাৎ ওর শরীর মুচরে বিছানায় আছরে পরল। আমি আর নিজেকে সামলাতে পারলামনা। বেসামাল হয়ে দরজাটায় হাত পরে গেল। ভয়ে পালাতে গিয়ে আরেক বিপত্তি, সোফায় হোচোট খেয়ে সটান পতন। কি হয়েছে তা দেখার জন্য, হেডফোন খুলে ঘুরে তাকাতেই,আধখোলা দরজা দিয়ে আমি, পায়েলের কাছে স্পষ্ঠ। পরিস্থিতিটা ওর মতো বুদ্ধিমতি মেয়ের কাছে অনুমান করতে কোনো অসুবিধাই হবার কথা নয়। দুজনেই পরস্পরের কাছে নগ্ন। কিভাবে পরিস্থিতির সামাল দেব ভাবছি, ও ঊঠল। আমার দিকে না ঘুরে লজ্জা ঢাকার জন্য বিছানায় পরে থাকা বালিসের তোয়ালেটা তুলে নিয়ে বুকটা ঢেকে নিল। তারপর খাট থেকে নামবার সময়ে আমার দিকে একবার তাকালো। ওর আলুথালু চুল, আর সুধু তোয়ালে সুধু বুক থেকে যোনি পর্যন্ত ঢাকা। আমার মাথা ঝিমঝিম করছে। না দেখলেও বুঝতে পারছি কান মাথা সব লাল। নেবে আমার দিকে হাল্কা লজ্জা আর দুস্টু একটা রহস্যময় হাসি নিয়ে ধিরে ধিরে মাদালসা ভাবে এগিয়ে এল। ঠিক যেন চিতা বাঘের সামনে বাঁধা আমি একটা হরিন। এসে আমার সামনে দাঁড়ালো। ওর শরীর ঘামে ভিজে আছে। তার সাথে একটা সুন্দর সোঁদা গন্ধ, ওর শরীর থেকে আসছে। সব তালগোল পাকিয়ে গেছে মাথায়। আস্তে আস্তে ও বসল আমার কোল ঘেঁসে। আমার চোখে চোখ রেখে বলল, ভয় পাও আমাকে ? এ কথার কি জবাব হয় তা আমার জানা নেই। আমার নাকটা একটু নেড়ে আদর করে বলল, বাঙালিবাবু, আমি বাঘ নই, মানুষ। একটা মেয়ে, আমাকে ছুলে আমি তোমাকে খেয়ে নেবনা । এটুকু আমার জন্য যথেষ্ঠ। আমি ওর কাঁধটা ধরলাম, ও তোয়ালে ছেড়ে আমার গলা জরিয়ে ধরে কপালে একটা চুমু খেল। আমি আষ্ঠেপিষ্ঠে জরিয়ে ধরলাম ওকে। মেয়েদের শরীর এত নরম হয় ! এতো আমার কল্পনার অতীত। ও ওর সমস্ত শরীরের ভার আমার ওপর ছেড়ে দিল। আমি একটা হাতে ওর ঘারের কাছে ধরে আস্তে আস্তে চুমু খেতে সুরু করলাম ওর কপালে, চোখে, গালে। ও আর ধৈর্য রাখতে পারলনা। দুহাতে আমার চুলে হাত ডুবিয়ে মাথাটা ধরে, আমার ঠোটে ঠোট ডুবিয়ে দিল। দুজনের দুটো ঠোট যেন চুপচাপ কথা বলে গেল একে অপরের সাথে, আমি এতদিন পায়েল কে নিয়ে যা কল্পনা করে এসেছি, আজ তার থেকেও সুন্দর করে সাড়া দিল পায়েল আমার ঠোটের প্রতিটি কথার। আমার আরেক হাত কখন জানিনা ওর কোমরে চলে গেছে। ওর ঠোট চুস্তে চুস্তে হাল্কা করে কামড়ে দিলাম দুষ্টুমি করে। ও মুখটা সরিয়ে নিয়ে দুষ্টু হেসে বলল, বদমাস। তারপর, আমার কোলের ওপর কোমর রেখে আড়াআড়ি করে শুয়ে পরল। সম্পুর্ন নিরাভরন। সুধু কোমরের কাছে তোয়ালেটা যোনিটা ঢেকে আছে আলগোছে। ওর চোখে কামনার স্পষ্ঠ ইঙ্গিত। হাতটা ওপরে করে চুলটা গোছা করে ধরে আছে একটা সুন্দর ব্যাথায়। খুতিয়ে খুতিয়ে আজ দেখছি ওর সেই রহস্যময় শরীর। বগলটা পরিস্কার, একেবারে বাচ্ছাদের মতো। বুকটা সুন্দর গোল, ছোট্ট বাদামি এরিওলাতে ছোট্ট একটা গোলাপী বোঁটা। মেধহীন পাতলা কোমর আর লম্বাটে নাভি। আমি তোয়ালেটা সরিয়ে দিলাম। ও হাল্কা একটা ইশশ্ শব্দ করে মুখটা লজ্জায় ঘুরিয়ে নিল। আমার হাতের ছোঁয়ায় হাল্কা কেঁপে উঠল ওর শরীর। ওর ঊরু কচি কলাগাছের মতো ভরাট আর সুন্দর, নমনীয় আর কমনীয়। ও একটা পা উঁচু করে রেখেছে। সেটা হাল্কা করে সরিয়ে দিলাম সুখ গহ্বরের সৌন্দর্য দেখার জন্য। ওর ভগাঙ্কুরটা লাল, যোনির ঠোট দুটো কামনায় পরিপুষ্ঠ। ওকে ঠিক পরীর মতো লাগছে। হাল্কা ছুঁলাম ওর ভগাঙ্কুর। ও মাই গড !! বলে ও উঠে বসল। এবার ও আমার কোলে। সম্পুর্ন নগ্ন। আমার চোখে চোখ রেখে সেই দুষ্টু হাসিটা ঠোটে নিয়ে বলল, কি দেখছ, এমন করে ? আমি বললাম -তোমাকে। - কেন আমাকে আগে দেখনি। - দেখেছি, কিন্তু এমন করে নয়। - পছন্দ হল আমাকে। কথা বলতে বলতে চোখ গেল ওর সম্মহনকারি বুকে। আমার দৃষ্টি অনুসরন করে ও বলল, জানো কত ব্যাথা এই বুকে! আমি ওর ঠোটে একটা চুমু খেয়ে আস্তে করে খুটে দিলাম ওর বোঁটা। ও -হাঃ- করে একটা শব্দ করল। ওর বোঁটাগুলো শক্ত হয়ে উঠল। আমার মাথাটা ধরে ও আমার সাড়া মুখ চুমুতে ভরিয়ে দিল। ওর নিশ্বাস ভারি, সাড়া শরীর ঘামে ভিজে গেছে। আমি ওকে শুইয়ে আস্তে করে মুঠো করে ধরলাম ওর বুক। একেবারে আমার হাতের মাপে। অসাধারন এক অনুভূতি। ঠোট সয়ংক্রিয় ভাবে নেমে এলো ওর অন্য বুকে। হাল্কা একটা চুম্বন, কেঁপে উঠল ও। জিভ দিয়ে ওর এরিওলার চার দিকে ঘোরালাম। ও বেঁকে ঊঠল। হাল্কা একটা খুঁতখুঁত আওয়াজ করছে ও। চেটে নিলাম ওর বুকের ঘাম, ওর এরিওলা সমেত বোঁটাটা ঠোটে নিয়ে একবার চুসলাম। ওর শরীর মুচরে মমম্ করে উঠে উপুড় হয়ে গেল। এখন ওর খোলা পিঠ, ঘারের কাছ থেকে চুলগুলো সরিয়ে, ঘারে ঠোট ঘসতেই খুঁতখুঁত আওয়াজ করে, হিসহিসিয়ে বলে “ইউ আর সাচ এ টিজার !” আস্তে আস্তে নেমে এলাম পিঠে। চুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দিলাম সমস্ত পিঠ। সেই সঙ্গে দুহাত দিয়ে অনুভব করে চলেছি ওর বুকের নমনিয়তা। তারপর ওর কোমরের কাছে এসে, ওর ওই সুন্দর নিতম্বের নেশায় বুঁদ হয়ে চুমু খেতে খেতে হাল্কা করে একটা লাভবাইট দিলাম। ও কামনায় ছট্ফট্ করে অহহ শব্দ উঠে আবার সোজা হয়ে ফিরল। এবার আমার মুখের সামনে ওর নাভী। ওর পেট থেকে ঠোট ঘসে ওর নাভীতে একটা গভীর ভাবে চুমু খেলাম। ও থরথর করে কাঁপতে শুরু করল। আমার মাথাটা চেপে ধরল। আমি নেমে এলাম ওর যোনিতে, জিভটা ঢুকিয়ে দিলাম দুটি ঠোটের মাঝে। ও বেঁকে উঠল, শীতকার করতে করতে আমার মাথাটা ওখানে যতটা সম্ভব চেপে, কাঁপাকাঁপা গলায় বলল, “হোল্ড মি টাইট, হল্ড মি টাইট প্লিজ।” আমি নাকটা ওর ভয়াঙ্কুরে চেপে আচমকা মাথা নাড়ালাম, ও ছট্কে ছট্কে উঠল। সেই সঙ্গে সুন্দর সোঁদা গন্ধটা আবার পেলাম সাথে সাথে আমার আগ্নেওগিরিতেও বিস্ফোরন ঘটল। ক্লান্ত ভাবে ও উঠে বসল। আমার ঠোটে একটা গভীর চুমু খেয়ে উঠে পালাতে গেল। আমি হাতটা ধরে ফেললাম, বললাম “আর আমার পাওনাটা ?” আমার পেন্টের দিকে ইঙ্গিত করে মুচকি হেসে বলল, “আমিতো আছিই আর রাতটাও পরে আছে। আর কাল তোমার ছুটি, তাই না !!”