করে বানাতে হবে ৷ গত বছর ঝড়ে ঘরটা ভেঙ্গে গেছে ৷ রাত ৯ টা বেজে গেছে ৷ বিল্টু , খোকন সবাই এই কমপ্লেক্স এ কাজ করে ৷ এদের সাথে বসে কথা বলে রঘু ৷ মামার সামনে বিড়ি না খেলেও দিনে এক দুবার দু একটা বিড়ি খায় ৷ পার্কের কোনে একটা জায়গায় এরা গোল হয়ে বসে ৷ রামদিন এসে বলে “রাঘুভিরা তঃরে ম্যাডাম বুলায়সে !” রঘু সবাই কে রাতে দেখা করবে বলে চলে আসে করিডরে সেখানে লিফট আছে ৷ ঘরে ঢুকতে গিয়ে দেখে ভিতরের বসার ঘরে রিটার বুকের আচল খসে আছে , বিকাশ আর রিটা একাত্ম হয়ে গল্প করছে ৷ সামনে একটা বড় মদের বোতল শেষ হয়ে তলানিতে ঠেকেছে ৷ কাছে না গিয়ে আড়াল থেকে ম্যাডাম কে উদ্যেশ্য করে বলে ” দিদিমনি কি করতে হবে ?” রিটা বুকের কাপড় সামলে নিয়ে বলে” খাবার গরম কর আমি খাব !” রঘু চুপ চাপ রান্না ঘরে চলে যায় ৷ ওভেন-এ খাবার চড়িয়ে খাবার গরম করতে থাকে ৷ বিকাশের যাওয়ার সময় হয়ে গেছে ৷ ওদের কথোপকথনের আওয়াজ একটু একটুকরে বাড়তে থাকে ৷ বাইরের সদর দরজা দেওয়া ৷ জোরে গান বাজালেও তা বাইরে যায় না ৷ বিকাশ চেচিয়ে চেচিয়ে কথা বলতে সুরু করে ” উ স্লাট, আমি না থাকলে আজ পথে বসতে হত সে খেয়াল আছে বিত্চ ,অভিলাস কে মানেজ করে মিত্রর জন্য কোটি টাকা আমি দিয়েছি ৷ আমাকে এই ভাবে অপমান করলে তোমার চরিত্র আমি ফাঁস করে দেব ইউ মরণ ” ৷ ইংরাজি কথা ভালো না বুঝলেও মোটা মুটি বুঝতে পারে রঘু ৷ বাইরে থেকে সুখের ময়নার মত দেখলেও আদপেই এরা সুখী নয় ৷ রিটা চেচিয়ে জবাব দেয় ” দেন ইউ টুক মে টু হেল , আমার সাথে নোংরাম করে এখন ব্লাকমেল করছ ইউ বাস্টার্ড , আমার বিশ্বাসের এই মর্যাদা দিলে …গেট আউট গেট আউট নাউ ! আই ডোন্ট ওননা সী ইউর ফেস এগেন !” বিকাশ ফোনস ফাঁস করে বেরিয়ে যাওয়ার আগে বলে ” আই উইল ফাক ইউ ইন ফ্রন্ট অফ উর হাসব্যান্ড ইউ হোর!” নেশায় রিটা টল মল করতে করতে কোনো রকমে মাথায় হাথ দিয়ে ডাইনিং হলে গিয়ে বসেন ৷ রঘুর মন খারাপ হয়ে যায় ৷ রিটা নেশাগ্রস্ত হয়ে বলেন ” আমার খাবার দাও রঘু , খুব টায়ার্ড লাগছে !” রঘু তারা তারই খাবার বেড়ে দেয় ৷ নিজেও খাবার বেড়ে নেয় ৷ “সব কাজ হয়ে গেছে আমি তাহলে খেয়ে দেয়ে নিচে চলে যাই ?” রঘু রতা ম্যাম কে জিজ্ঞাসা করে ! রিটা কিছু বলে না ৷ মনোযোগ দিয়ে খেতে খেতে কিছুটা খেয়ে বাকিটা থালায় রেখে বলে ” আমি শুতে যাচ্ছি তুমি বাইরের গেটের তালা ঝুলিয়ে চলে যাও আর কাল সকাল সকাল এস , কাল আমি বেরোব ৷ ” রিটা নিজের বেদ রুমে গিয়ে কাপড় জামা বদলে ওনার পিঙ্ক সিফনের গাউন চড়িয়ে খাটের পাশেই ধপাস করে পড়ে গেলেন ৷ রঘু দৌড়ে গিয়ে ম্যাডামের সামনে দাঁড়াতে রঘু বুঝতে পারল ম্যাম আজকে বেশি মদ খেয়ে ফেলেছেন ৷ কি করে ? ইতস্তত হয়ে ম্যাডামের হাথ নাড়িয়ে ডাক দেয় ৷ আধ বোজা চোখে রঘুকে দেখেও উঠতে পারে না ৷ রঘু ম্যাম কে ঘাড়ে হাথ দিয়ে আর হাঠুর নিচে হাথ দিয়ে তুলে বিছানায় শুইয়ে দেয় ! রঘু ভালো করে ম্যামের শরীর দেখতে থাকে ৷ ভিতরে কোনো অন্তর্বাস পরা নেই ৷ সুন্দর সুডোল মাখনের মতন গা , ভরা করে বানাতে হবে ৷ গত বছর ঝড়ে ঘরটা ভেঙ্গে গেছে ৷ রাত ৯ টা বেজে গেছে ৷ বিল্টু , খোকন সবাই এই কমপ্লেক্স এ কাজ করে ৷ এদের সাথে বসে কথা বলে রঘু ৷ মামার সামনে বিড়ি না খেলেও দিনে এক দুবার দু একটা বিড়ি খায় ৷ পার্কের কোনে একটা জায়গায় এরা গোল হয়ে বসে ৷ রামদিন এসে বলে “রাঘুভিরা তঃরে ম্যাডাম বুলায়সে !” রঘু সবাই কে রাতে দেখা করবে বলে চলে আসে করিডরে সেখানে লিফট আছে ৷ ঘরে ঢুকতে গিয়ে দেখে ভিতরের বসার ঘরে রিটার বুকের আচল খসে আছে , বিকাশ আর রিটা একাত্ম হয়ে গল্প করছে ৷ সামনে একটা বড় মদের বোতল শেষ হয়ে তলানিতে ঠেকেছে ৷ কাছে না গিয়ে আড়াল থেকে ম্যাডাম কে উদ্যেশ্য করে বলে ” দিদিমনি কি করতে হবে ?” রিটা বুকের কাপড় সামলে নিয়ে বলে” খাবার গরম কর আমি খাব !” রঘু চুপ চাপ রান্না ঘরে চলে যায় ৷ ওভেন-এ খাবার চড়িয়ে খাবার গরম করতে থাকে ৷ বিকাশের যাওয়ার সময় হয়ে গেছে ৷ ওদের কথোপকথনের আওয়াজ একটু একটুকরে বাড়তে থাকে ৷ বাইরের সদর দরজা দেওয়া ৷ জোরে গান বাজালেও তা বাইরে যায় না ৷ বিকাশ চেচিয়ে চেচিয়ে কথা বলতে সুরু করে ” উ স্লাট, আমি না থাকলে আজ পথে বসতে হত সে খেয়াল আছে বিত্চ ,অভিলাস কে মানেজ করে মিত্রর জন্য কোটি টাকা আমি দিয়েছি ৷ আমাকে এই ভাবে অপমান করলে তোমার চরিত্র আমি ফাঁস করে দেব ইউ মরণ ” ৷ ইংরাজি কথা ভালো না বুঝলেও মোটা মুটি বুঝতে পারে রঘু ৷ বাইরে থেকে সুখের ময়নার মত দেখলেও আদপেই এরা সুখী নয় ৷ রিটা চেচিয়ে জবাব দেয় ” দেন ইউ টুক মে টু হেল , আমার সাথে নোংরাম করে এখন ব্লাকমেল করছ ইউ বাস্টার্ড , আমার বিশ্বাসের এই মর্যাদা দিলে …গেট আউট গেট আউট নাউ ! আই ডোন্ট ওননা সী ইউর ফেস এগেন !” বিকাশ ফোনস ফাঁস করে বেরিয়ে যাওয়ার আগে বলে ” আই উইল ফাক ইউ ইন ফ্রন্ট অফ উর হাসব্যান্ড ইউ হোর!” নেশায় রিটা টল মল করতে করতে কোনো রকমে মাথায় হাথ দিয়ে ডাইনিং হলে গিয়ে বসেন ৷ রঘুর মন খারাপ হয়ে যায় ৷ রিটা নেশাগ্রস্ত হয়ে বলেন ” আমার খাবার দাও রঘু , খুব টায়ার্ড লাগছে !” রঘু তারা তারই খাবার বেড়ে দেয় ৷ নিজেও খাবার বেড়ে নেয় ৷ “সব কাজ হয়ে গেছে আমি তাহলে খেয়ে দেয়ে নিচে চলে যাই ?” রঘু রতা ম্যাম কে জিজ্ঞাসা করে ! রিটা কিছু বলে না ৷ মনোযোগ দিয়ে খেতে খেতে কিছুটা খেয়ে বাকিটা থালায় রেখে বলে ” আমি শুতে যাচ্ছি তুমি বাইরের গেটের তালা ঝুলিয়ে চলে যাও আর কাল সকাল সকাল এস , কাল আমি বেরোব ৷ ” রিটা নিজের বেদ রুমে গিয়ে কাপড় জামা বদলে ওনার পিঙ্ক সিফনের গাউন চড়িয়ে খাটের পাশেই ধপাস করে পড়ে গেলেন ৷ রঘু দৌড়ে গিয়ে ম্যাডামের সামনে দাঁড়াতে রঘু বুঝতে পারল ম্যাম আজকে বেশি মদ খেয়ে ফেলেছেন ৷ কি করে ? ইতস্তত হয়ে ম্যাডামের হাথ নাড়িয়ে ডাক দেয় ৷ আধ বোজা চোখে রঘুকে দেখেও উঠতে পারে না ৷ রঘু ম্যাম কে ঘাড়ে হাথ দিয়ে আর হাঠুর নিচে হাথ দিয়ে তুলে বিছানায় শুইয়ে দেয় ! রঘু ভালো করে ম্যামের শরীর দেখতে থাকে ৷ ভিতরে কোনো অন্তর্বাস পরা নেই ৷ সুন্দর সুডোল মাখনের মতন গা , ভরা করে বানাতে হবে ৷ গত বছর ঝড়ে ঘরটা ভেঙ্গে গেছে ৷ রাত ৯ টা বেজে গেছে ৷ বিল্টু , খোকন সবাই এই কমপ্লেক্স এ কাজ করে ৷ এদের সাথে বসে কথা বলে রঘু ৷ মামার সামনে বিড়ি না খেলেও দিনে এক দুবার দু একটা বিড়ি খায় ৷ পার্কের কোনে একটা জায়গায় এরা গোল হয়ে বসে ৷ রামদিন এসে বলে “রাঘুভিরা তঃরে ম্যাডাম বুলায়সে !” রঘু সবাই কে রাতে দেখা করবে বলে চলে আসে করিডরে সেখানে লিফট আছে ৷ ঘরে ঢুকতে গিয়ে দেখে ভিতরের বসার ঘরে রিটার বুকের আচল খসে আছে , বিকাশ আর রিটা একাত্ম হয়ে গল্প করছে ৷ সামনে একটা বড় মদের বোতল শেষ হয়ে তলানিতে ঠেকেছে ৷ কাছে না গিয়ে আড়াল থেকে ম্যাডাম কে উদ্যেশ্য করে বলে ” দিদিমনি কি করতে হবে ?” রিটা বুকের কাপড় সামলে নিয়ে বলে” খাবার গরম কর আমি খাব !” রঘু চুপ চাপ রান্না ঘরে চলে যায় ৷ ওভেন-এ খাবার চড়িয়ে খাবার গরম করতে থাকে ৷ বিকাশের যাওয়ার সময় হয়ে গেছে ৷ ওদের কথোপকথনের আওয়াজ একটু একটুকরে বাড়তে থাকে ৷ বাইরের সদর দরজা দেওয়া ৷ জোরে গান বাজালেও তা বাইরে যায় না ৷ বিকাশ চেচিয়ে চেচিয়ে কথা বলতে সুরু করে ” উ স্লাট, আমি না থাকলে আজ পথে বসতে হত সে খেয়াল আছে বিত্চ ,অভিলাস কে মানেজ করে মিত্রর জন্য কোটি টাকা আমি দিয়েছি ৷ আমাকে এই ভাবে অপমান করলে তোমার চরিত্র আমি ফাঁস করে দেব ইউ মরণ ” ৷ ইংরাজি কথা ভালো না বুঝলেও মোটা মুটি বুঝতে পারে রঘু ৷ বাইরে থেকে সুখের ময়নার মত দেখলেও আদপেই এরা সুখী নয় ৷ রিটা চেচিয়ে জবাব দেয় ” দেন ইউ টুক মে টু হেল , আমার সাথে নোংরাম করে এখন ব্লাকমেল করছ ইউ বাস্টার্ড , আমার বিশ্বাসের এই মর্যাদা দিলে …গেট আউট গেট আউট নাউ ! আই ডোন্ট ওননা সী ইউর ফেস এগেন !” বিকাশ ফোনস ফাঁস করে বেরিয়ে যাওয়ার আগে বলে ” আই উইল ফাক ইউ ইন ফ্রন্ট অফ উর হাসব্যান্ড ইউ হোর!” নেশায় রিটা টল মল করতে করতে কোনো রকমে মাথায় হাথ দিয়ে ডাইনিং হলে গিয়ে বসেন ৷ রঘুর মন খারাপ হয়ে যায় ৷ রিটা নেশাগ্রস্ত হয়ে বলেন ” আমার খাবার দাও রঘু , খুব টায়ার্ড লাগছে !” রঘু তারা তারই খাবার বেড়ে দেয় ৷ নিজেও খাবার বেড়ে নেয় ৷ “সব কাজ হয়ে গেছে আমি তাহলে খেয়ে দেয়ে নিচে চলে যাই ?” রঘু রতা ম্যাম কে জিজ্ঞাসা করে ! রিটা কিছু বলে না ৷ মনোযোগ দিয়ে খেতে খেতে কিছুটা খেয়ে বাকিটা থালায় রেখে বলে ” আমি শুতে যাচ্ছি তুমি বাইরের গেটের তালা ঝুলিয়ে চলে যাও আর কাল সকাল সকাল এস , কাল আমি বেরোব ৷ ” রিটা নিজের বেদ রুমে গিয়ে কাপড় জামা বদলে ওনার পিঙ্ক সিফনের গাউন চড়িয়ে খাটের পাশেই ধপাস করে পড়ে গেলেন ৷ রঘু দৌড়ে গিয়ে ম্যাডামের সামনে দাঁড়াতে রঘু বুঝতে পারল ম্যাম আজকে বেশি মদ খেয়ে ফেলেছেন ৷ কি করে ? ইতস্তত হয়ে ম্যাডামের হাথ নাড়িয়ে ডাক দেয় ৷ আধ বোজা চোখে রঘুকে দেখেও উঠতে পারে না ৷ রঘু ম্যাম কে ঘাড়ে হাথ দিয়ে আর হাঠুর নিচে হাথ দিয়ে তুলে বিছানায় শুইয়ে দেয় ! রঘু ভালো করে ম্যামের শরীর দেখতে থাকে ৷ ভিতরে কোনো অন্তর্বাস পরা নেই ৷ সুন্দর সুডোল মাখনের মতন গা , ভরা Next Page