অনু তার জামা কাপর গুলি তুলে নিল। কিন্তু পরতে ইচ্ছা হল না। বাইরে তখন ও বৃষ্টি হচ্ছিল বজ্রপাতের আলো ছাড়া আর কোন আলো ছিল না। মাঝে মাঝে আকাশ থেকে নেমে আসা আলোকচ্ছটায় লিনা মাসির লেগে থাকা যোনী রসে ভিজা পুরুষাংগ টা চক চক করছিল যেন যুদ্ধ ক্লান্ত কোন বীর তন্দ্রায় মগ্ন। অনুর সতীত্ব হরন সম্পন্ন হ্ল বৃষ্টি ভেজা রাতে অনুর চেয়ে বয়সে অনেক বড় অপুর্ব অপ্সরার হাতে। অপুর্ব আনন্দ পেয়েছে অনু। অনু ঠিক করল নিজের রুমে গিয়ে ঘুমাবে। অনুর স্কুল বন্ধ তাই সকালে স্কুলে যেতে হবে না।মাধবীদের রুমে গেলে আর ঘুমাতে পারবেনা। পাশে এইরকম দুইজন অপ্সরা থাকলে কি ঘুমানো যায়? জামাকাপর পরে নিজের রুমে গিয়ে খাটে শুতেই ঘুমের রাজ্যে চলে গেল অনু। পরদিন সকালে রামুকাকার খট খটানিতে ঘুম ভাংগল। টেবিল ঘড়িতে দেখল সকাল ৮ টা বাজে। মনে মনে বিরক্ত হ্ল। এত সকালে ঘুম থেকে উঠার ইচ্ছা ছিল না। তারপর ও একবার ঘুম ভাংগলে আর ঘুম আসেনা অনুর। জানালা দিয়ে দেখতে পেল বৃষ্টি তখন ও থামেনি। আকাশ মেঘ করে আছে বাইরেটা দেখলে মনেই হয় না যে সকাল হয়েছে। অনু টুথপেষ্ট নিয়ে ব্রাশে লাগাল তারপর দরজা খুলে বের হয়ে এল। একটু এগুতেই দেখল লিনা মাসিদের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ। হাফ ছেড়ে বাচল অনু। কাল রাতের পর দিনের আলোতে লিনা মাসির সামনা সামনি পড়তে খুবই লজ্জা লাগছিল। বারান্দা দিয়ে হেটে সোজা কলের সামনে চলে গেল। কলঘরের সাথেই বৈঠক ঘর। অনু দেখল বৈঠক ঘরের দরজার একটা পাল্লা খোলা। সাধারনত এই সময়ে বৈঠক ঘরে কেউ থাকার কথা না। অনু তাড়াতাড়ি দাত মেজে মুখ ধুয়ে কলঘরে রাখা তোয়ালেতে হাত মুখ মুছে নিল। তারপর খুব সন্তর্পনে হেটে গেল। দেখল তাদের বুয়াটা বৃষ্টিতে ভেজা কাপর ছাড়ছে। অনু যখন গেল তখন অলরেডি বুয়া তার উপরের অংশ খুলে ফেলেছে। বুয়ার কালো শরীরে একফোটা ও মেদ নেই। স্তন বৃন্তগুলো একদম খাড়া খাড়া। বৃষ্টির জল চক চক করছে কালো শরীরে। স্তন গুলো ভরাট ভরাট সত্যি আকর্ষনীয়। অনু সরে আসতে চাইছিল কিন্তু পারছিল না। পাগুলা যেন আটকে গেছে। বুয়া অনুর দিকে পিছন ফিরে ছায়াটা খুলে ফেল্ল... নিতম্বের ভাজ দেখে অনুর মাথা খারাপ হয়ে গেল। তানপুরার মত গোল নিতম্ব ভেজা চুল বেয়ে জল নিতম্বে পড়ছিল। বুয়া আস্তে আস্তে গামছা দিয়ে সারা শরীর মুছতে লাগল। যখন উবু হয়ে পা মুছতে গেল তখন অনুর যেটা দেখা বাকী ছিল তাও দেখ হয়ে গেল। বুয়ার যোনীর চারপাশে কোন লোম নেই। বেশ ফোলা ফোলা একটা ভাব আছে। যোনীর চেরাটা ঠিক তার দিকে মুখ করে আছে। ত্রিভুজাকৃতির সেই রহস্যময় জায়গাটি যেন অনুকে ডাকছিল। অনুর পুরুষাঙ্গ শক্ত হয়ে তখন আকাশমুখি। অনু তখন কুল জাতী, বংশ জায়গা এইসব কিছু চিন্তা করার উর্ধে। নিজের অজান্তেই দরজার আড়াল থেকে কখন দরজার সামনে গিয়ে দাড়াল নিজেই জানেনা। বুয়া তখন ও আপনমনে গা মুছে চলছে। অনুর ভিতরের অসুরটা মাথা চাড়া দিয়ে উঠল। ঝট করে ঘরে ঢুকেই দরজার সিটকিনি তুলে দিল। দরজার শব্দে ঝট করে ঘুরে দাড়াল মেয়েটা! বিষ্ফোরিত চোখে চেয়ে থাকল অনুর দিকে। কি হচ্ছে বুঝার আগেই অনু তার পায়জামা নামিয়ে ফেল্ল। অনুর জিনিসটা ততক্ষনে বিশাল আকার ধারন করেছে। উত্তেজনায় তিরতির করে কাপছে। মেয়েটা বল্ল “দাদা ভাই কি করছেন??” অনু তখন জান্তব গোংগানির সাথে চাপা স্বরে বলল “একদম চুপ! কোন কথা বলবি না!” অনু তার গায়ের গেঞ্জীটা ও খুলে ফেলল। দুজনে তখন একেবারে আদিম মানব মানবী। অনু ধীরে ধীরে মেয়েটির দিকে এগিয়ে যেতে লাগল। মেয়েটির চোখ অনুর