এটা ঠিক যে যুবক বয়সের ছেলেদের অল্প বয়সের মেদের তুলনায়, একটু বেশি বয়সের মহিলাদের (প্রায় ৩০-৪০ বছর বয়সের) প্রতি আগ্রহ বেসি থাকে। আমি নিজেও পছন্দ করি এই বয়সের মহিলা দেরকে । কারণ একটাই, তাদের তখন তাদের দেহে পরিপুর্ণতা থাকে। আর নেচারেলি এই জিনিস গুলো ইয়াং এজের মানুষ খুব পছন্দ করে, আর এই বয়সের যে সব মহিলা তাদের ফিটনেসটা একটু দরে রেখেছে তাদের কথা আর নাইবা বললাম। রীতি মতো তুফান বয়ে যায় তাদের অন্তরে। আরেকটা কথা না বললেই হয় না, এদের কিন্তু খুব সহজে পটানো যায়, আর ইছে মতো সেক্স ও করা যায় এদের কে। তবে পটাতে কিছু কৌশল ফলো করা লাগে, তা না হলে শিকার কখনই বাটে আনা যাবে না…। আর মনে রাখবেন সেক্স করার আগে আপনাকে চলতে হবে তার ইচ্ছায়, যখনি একটা বার তাকে আপনি বিছানায় শোয়াতে পারবেন, তখন সে চলবে আপনার ইচ্ছায়। সে আপনার যত অনুগত থাকবে আপনার বউও আপনার এতো অনুগতো থাকবে না। আপনি তার চিন্তার জগতে স্থান করে নিবেন নিজে থেকেই, আর কিছুই করা লাগবে না।
আমার এতো দিনের কিছু অভিজ্ঞতা আপনাদের সাথে শেয়ার করছি, টেকনিকে কিছু ভুল ও থাকতে পারে। তবে আমি এই রুলস ফলো করেই বহু আন্টির সাথে রাত কাটিয়েছি। আমার মতো পরিবেশ-পরিস্থিতি আপনার নাও হতে পারে, অথবা সাইকোলজিকাল কন্ডিশনও ভিন্ন হতে পারে। সো পরিবেস, পরিস্থিতি এবং মেন্টালিটির উপর ডিপেন্ড করে টামস গুলো অবশ্যই পরিবর্তন হবে।

যার সাথে আপনি সেক্স করতে চাইছেন তার উইক পয়েন্ট গুলো খুজে বের করতে হবে সবার আগে।
তার মানষিক ও শারিরিক অবস্থা সম্পর্কে ধারণা রাখতে হবে।
আপনি কখনই তার সামনে খুব চালাক/বোকা সাজার দরকার নেই, নরমাল থাকবেন।
তাকে আপনি অনেক সময় দিবেন, তার কথা গুলো মোনযোগ দিয়ে শুনছেন এমন একটা ভাব নিবেন তার সামনে। আর অবশ্যই তাকে খুব টেক কেয়ার করবেন।
আস্তে আস্তে তার মোনে খুব শক্ত একটা অবস্থান করে নিতে হবে আপনার, সব কাজেই যেন আপনাকে সে বিশ্বাস করতে পারে।
তাকে নিয়ে কোথাও ঘুরতে যাবেন। আপনেই আগে থেকে কিছু বলে ফেলবেন না। তার মোনটা যখন খুব খারাপ থাকবে তখন অফার টা করবেন, দেখবেন না করতে পারবে না।
প্রথমেই কোন রোমান্টিক প্লেসে নয়, যাবেন মার্কেট, পার্ক, রেস্টুরেন্ট অথবা খোলা কোন যায়গায়। যাতে করে সে আপনার সাথে বসে মোন খুলে কিছু কথা বলতে পারে।
তার পর সম্পর্ক কিছুটা ডিপ হলে তাকে মুভি দেখাতে বা থিয়েটারে নিয়ে যাবেন, লং ড্রাইভ, নাইট পার্টি বা এমন কোথাও যাবেন যেখানে সে অনেকটা সময় আপনাকে একা পায়।
ভালো করে লক্ষ করে দেখবেন আকার ইংগিতে সে আপনাকে কোন মেসেজ দেয় কিনা, অথবা আপনার সাথে আড্ডা না দিলে বা ঘুরতে না গেলে সে কি করে। অস্থিরতা দেখায় কিনা।
তার পর তার স্বামীর কথা তুলবেন, আগে কখনো প্রেম করেছে কিনা, তার সাথে ফিজিকাল রিলেশন হয়েছে কিনা, এতকাল একা একা কিভাবে ছিলো, এসব বলে বলে তার সাথে আপনি খুব ফ্রি হয়ে যাবেন।
যখন তখন তার রুমে যাবেন, দর্জা বন্দ করে কথা বলবেন, তাকে নিয়ে ঘুরতে যাবেন। এসব করলে দেখবেন তার উপর আপনার একটা নিয়ন্ত্রন এসে যাবে।
এবার আপনার অপারেশন; তাকে এবার আপনিই আকার ইংগিতে খুব হালকা ভাবে সেক্সের জন্য আহবান করবেন। যেমন কখনো হাত ধরে টান দিবেন, গায়ে হাত দিবেন চুলে হাত দিবেন।
প্রথম প্রথম সে আপনাকে না করতে পারে, তার পরো খুব স্মুথলি এটা চালিয়ে যাবেন। মোনে রাখবেন গায়ে হাত দেয়াটা খুবি টেকনিকেল বেপার আর এটা কিন্তু খুব ইম্পর্টেন্ট একটা পার্ট। (যদি সে খুব করা ভাবে না করে দেয় তাহলে আর সামনে যাওয়ার দরকার নেই, প্রজেক্ট ফেল। নতুন প্রজেক্ট হাতে নেন)
আর যদি দেখেন আপনার এই সব আচরনে সে অব্যস্থ হয়ে গেছে, তখন বুজে নিতে হবে আপনার কাজ শেষ, এবার সেক্স...
নিরিবিলি কোন যায়গা বেছে নেবেন, যেখানে মিনিমাম দুই তিন ঘন্টা থাকা যাবে। আর খুব বেশি উত্তেজিত হয়ে যাবেন না। আস্তে ধিরে কাজ করবেন, সময় একটু বেশি নেয়ার চেষ্টা করবেন। যেন সে প্রপারলি সেটিস্ফাই হয়।
মোনে রাখবেন আপনার প্রথম দিনের পারফরমেন্সের উপর নির্বর করবে অনেক কিছু। তাই তাকে অবশ্যই পরিপুর্ন তৃপ্তি দেয়ার চেষ্টা করবেন। (কামাসুত্রা জানা থাকলে এক্সট্রা ফেসেলিটি পেতে পারেন)
আমরা হয়তো মজা করার জন্য চটিতে অনেক কিছুই লিখি, তার সব কিছুই কিন্তু বাস্তব নয়। মজা আর বাস্তবতা দুইটা দুই জিনিস সো নিজের আপন জনদের সাথে এই আচরণ করা কখনই ঠিক নয়। তা সাময়িক কিছু মজা দিলেও, পরে অনেক প্রব্লেম হবে। আর প্রজেক্ট ফেল হলেতো কথাই নাই, আপনি কারো মুখই দেখাতে পারবেন না। কারণ অর দশ জন মহিলাদের তুলনায় তারা এই কাজে রাজি হওয়ার প্রবাবিলিটি একেবারেই কম। তাই আমার মতে কাজের পরে চিন্তা না করে, চিন্তা করে কাজ করাটাই বুদ্ধি মানের লক্ষন। সাময়িক আবেগ কে প্রস্রয় দিয়ে ভুল করে নির্ভোদ মানুষ। দয়া করে ওদের কাতারে আপনার অবস্থান করে নিবে না।