রিতার আরো একটু ভিজতে ইচ্ছে করলো। কত্তদিন সে একা একা বৃষ্টিতে ভিজে না! কিন্তু, ঐ দিনই যে ছিল পূর্ণীমার রাত। আকাশে মেঘ থাকায় তা বোঝা যায় নি। এই  দিকে বৃষ্টিতে ভিজে ভেতরে ভেতরে রিতার কাম-বাসনা মাথা চারা দিয়ে উঠতে শুরু করেছে। বুক আরো ফুঁপে-ফেঁপে উঠছে। যৌনি পথে মাংশ পিন্ড গুলো কিলবিল করা শুরু করে দিয়েছে। রিতার যেন বাতাসে ভাসছে। হঠাৎ সে আবিষ্কার করলো তার সামনে কে যেন দাঁড়িয়ে আছে। ছেঁৎ করে উঠলো বুক টা!!। খুবই ভয় পেয়ে গেল রিতা, সাথে অজান আশংকা আর লজ্জা।
একটি বৃষ্টি ভেজা হাসি দিয়ে আগুন্তুক বললো, “ভাবী- ভালো আছেন? বৃষ্টিতে আপনাকে এভাবে প্রাণ খোলা ভাবে ভিজতে দেখে কি যেন চমৎকার লাগছিল, ব্যাখ্যা করে বোঝাতে পারবো না। শুধু প্রাণ ভরে দেখছিলাম।‍” রিতা অপ্রস্তুত হাসি দিল। কিন্তু, বুকের ধুক ধুক টা কমেনি। ভেজা কাপরে লেপ্টে থাকা উঁচাতু বুক চরম ভাবে ওঠা-নামা করছে। রিহানের চোখ সেখানে টিব টিব করে তাকিয়ে আছে। বিদ্যুৎ চমকালো হঠাৎ। দু’জনে দুজনার মুখ দেখতে পেলো। পরক্ষণই বিকট শব্দে বাজ পরলো্। রিতা প্রচন্ড ভয় পেয়ে রিহানকে জড়িয়ে ধরলো। দু’জনের বুক একবারে লেপ্টে থাকলো কিছুক্ষণ। অতি দ্রুত রিতা সামলে নিল। কিন্তু, রিহান ভাবছে, থাকুক না এমনকরে আরো কিছুক্ষণ। পারলে আজীবন…..