আমার নাম মিম। বয়স প্রায় ত্রিশ। আমার স্বামী আছে, দুটি সন্তান আছে। মেয়ের বয়স সাত আর ছেলের বয়স চার। আমার স্বামী বিদেশে থাকে, আমাদের বিয়ে হয়েছে দশ বছর। প্রতি দুই বছর অন্তর দেশে আসে। টাকা পয়সার কোনো অভাব নেই, আমার স্বামীও সুপুরূষ। তাহলে বলা যায় যে আমি ভাগ্যবতী মেয়ে,আমার সুখের অভাব নেই। আসলেই কি তাইৎ না আমার জীবনে সুখ হচ্ছে মরিচিকার মতো। এই আছে এই নেই। কেন ? কারন বলছি
আমার বয়স যখন বার -তেরো তখন আমার বাবা অসুস্খ্য হয়ে পরে, আমরা অনেক গুলি ভাই বোন ছিলাম, ভাইয়েরা ছিল সব ছোট। অভাবে পরে মা জায়গা জমিও বিক্রি করে দিল, কিন্তু এভাবে কতদিন চলে। আমার চেহারা ভালো থাকাতে সবাই বললো এই মেয়েকে ভালো ঘরে বিয়ে দিয়ে দাও, মেয়েরও গতী হবে তোমার ও অভাব ঘুচবে।
সেভাবেই আমার বিয়ে ঠিক করা হলো। বরকে আমি দেখিনি।বিয়ের পর লঞ্চে করে বরের বাড়ি গেলাম।
সেখানে সবাই আমাকে দেখে কানাঘুষা করতে লাগলো, এতো ছোট মেয়ে এই ছেলের ঘর করবে তো ?
বাসর ঘরে আমি আমার স্বামীকে দেখে ভয় পেয়ে গেলাম।কারন আমার বর দেখতে ছিল আমার বাবার বয়সি, আমি কি করবো বুঝতে পারলাম না, ভয়ে জ্ঞান হারালাম।
জ্ঞান ফিরলে দেখলাম আমি খাটের এক কোণে পড়ে আছি। শরীরে কোনো কাপড় নেই। বুঝলাম জ্ঞান হারানোর পর লোকটি তার কামনা মিটিয়েছে। প্রচন্ড ব্যথা নিয়ে উঠে দাড়ালাম, আর নিজের ভাগ্যকে মেনে নিতে চাইলাম, কিন্তু পারলাম না। প্রতিরাতেই তার ঘরে ঢোকার সঙ্গে সঙ্গে ভয়ে জ্ঞান হারাতাম আর জ্ঞান ফিরে দেখতাম খাটের এক কোণে বিবস্ত্র অবস্খায় পড়ে আছি। তাকে ভালোবাসা তো দুরের কথা, ঘৃণা করতে লাগলাম। একদিন বাবার বাড়ি আসার সুযোগ পেলাম আমি। আমাদের বাড়িতে এই যে ঢুকলাম আর ওই লোকের বাড়িতে যাবো না বলে ঠিক করলাম।
এর মধ্যে আমাদের এলাকায় এক মাস্তান ছেলে অনেক আগের থেকেই আমাকে পছন্দ করতো। তার মাস্তানি করার জন্য তার বাবা মা তাকে বিদেশে পাঠিয়ে ছিলো। সে আমাকে নিয়মিত চিঠি দিতো। তাই ভাবলাম ওই বুড়োর হাত থেকে বাচতে হলে আমাকে এর সাহায্য দরকার। তাই ওকে চিঠিতে ও ফোনে সব জানালাম, এড়িয়ে গেলাম লোকটির সাথে আমার দৈহিক সম্পকের কথা। কারণ যদি তাতে ওর মন ফিরে যায়। যেহেতু সে আমাকে পছন্দ করে তাই ও আমাকে কথা দিল দেশে এসে আমাকে বিয়ে করবে। দেশে এলো আমাদের বিয়ে হয়ে গেলো, বিয়ের দুমাস পরেই আবার বিদেশ চলে গেলো।এ দুমাস যেহেতু আমি মোটামুটি তাকে পছন্দ করি আর সে আমাকে উপকার করেছে তাই তার সঙ্গে মন খুলে শারীরিক সম্পর্ক করলাম। কিন্তু দুইমাস পর বিদেশ গিয়ে ফিরলো দুইবছর পর, এ দুই বছর একটি মেয়ে কিভাবে থাকে তা সে বোঝোনা।
আমার দিন যায় কাজের কিন্তু রাত আর কাটে না। অনেক কষ্টে পার করলাম দুইটি বছর। এরপর সে এসেই বাচ্চা নিতে চাইলো। কারণ বিদেশে থাকা স্বামীর স্ত্রীরা একা থাকলে তাদের চাহিদা মেটাতে অন্য পুরূষ ধরতে পারে। সন্তান নিলে সে সন্তান নিয়ে ব্যস্ত থাকবে তখন আর চাহিদা নিয়ে ভাববে না। আমার কোল জুড়ে এলো আমার মেয়ে। তাকে নিয়ে কাটে আমার দিন রাত। স্বামী আসে দুই বছর পর পর। এসেই ভালোবাসা বেড়ানো কিছুই নেই, যে কটি মাস থাকে সে শুধু আমার দেহটি ভোগ করে। এভাবেই আমার ছেলে হলো, কিন্তু আমার মনে ভালোবাসার ক্ষিধে রয়েই গেল।
এর মধ্যে বাসা পাল্টিয়ে নতুন বাসায় উঠলাম। আমার সামনের বাসার একটি ছেলে প্রায়ই আমার দিকে তাকিয়ে থাকতো। খুব রাগ হতো। একদিন আমাকে ছেলেটি জিজ্ঞাসা করলো কেমন আছেন। আমি কি ভেবে বললাম ভালো আছি। পরদিন সে আমার কাছে মোবাইল নাম্বার চাইলো আমি না করতে পারলাম না। আমার সাথে দেখা করতে চায় বুন্ধত্ব করতে চায়, আমি ভাবলাম জীবনে তো কোনো বুন্ধু পেলাম না তার সাথে কথা বললে দেখা করলে হয়তো আমার একাকিত্ব দুর হবে
একদিন সকালে লেকের পাড়ে দেখা করলাম, প্রথম দিন বলে আমার একটু ভয় করছিল। ছেলেটির সঙ্গে
কথা বলতে আমার খুব ভালো লাগলো, খুব ভদ্র ছেলে, আর তার কথায় কেমন জানি জাদুমাখা। একবার শুনলে বারবার শুনতে ইচ্ছে করে, বাড়ি ফেরার পথে ছেলেটি আমার হাত ধরতে চাইলো। আমি মানা করতে পাররাম না, সে আমার হাতটি আলতো করে ধরে রাখলো, আমার সমস্ত শরীরে তখন বিদ্যুৎ ছুয়ে গেল। এক পর্যায় সে আমার বুকে স্পর্শ করলো, আমার মনে হলো জাদুর পরশ বুলিয়ে দিল সাড়া শরীরে। আমি যতবার তার সাথে দেখা করলাম, ততবারই সে তার হাতের জাদুর স্পর্শে আমাকে মাতাল করে রাখে।এর মধ্যে আমার স্বামী দেশে আসে। সে ছেলের সাথে সাক্ষাৎ ফোন সবই ব করতে হলো।
ছয় মাস ছিল আমার স্বামী, সে সুপুরুষ তার কোনো ঘাটতি নেই।স্বামীর এতো আদর সোহাগ আমাকে ওই ছেলেটির স্পর্শ ভোলাতে পারলো না।
ছয় মাস পর আমার স্বামী বিদেশ চলে গেলো। আমি আবার তার সাথে যোগাযোগ করলাম, কিন্তু ভয় ও পেলাম, ভয়ঙ্কর ছেলে আমার সব কিছু লুটে নেবে। তবুও মনকে মানাতে পারলাম না, আমি তার ডাকে সাড়া না দিয়ে থাকতে পারিনা। রোজার সময় আমি হঠাৎ খুব অসুস্খ্য হয়ে পরলাম, হাসপাতালে ভর্তি করানো হলো। ছেলেটি খবর পেয়ে সবার অলক্ষে আমাকে দেখতে আসতো। সে যতক্ষন আমার কাছে থাকতো ততক্ষন আমি সুস্খ্য থাকতাম সে চলে গেলে আবার অসুস্খ্য হয়ে পরতাম।
তুমি তো আমারক বিয়ে করতে বলেছ, এক সময় ছেলেটি জানালো সে আমাকে ভালোবাসে। মনে হলো আমার সমস্ত যন্ত্রণা ভালো হয়ে গেছে। বাড়ি ফেরার আগের দিন স্যায় ছেলেটি দেখা করতে গেলে ওর সঙ্গে ঘন্টা দুয়েক কথা বললাম। আমার সব ব্যথা মুহূর্তে উধাও হয়ে গেল। যায়োর আগে ছেলেটি আমাকে হসপিটালেরনির্জন বারান্দায় নিয়ে দুই হাতে আমাকে জড়িয়ে বুকের মাঝে নিয়ে আমার দুই ঠোটের মাঝে চুমু একে দিল। সারারাত ঘুমাতে পারিনি সে রাতে। মনে হলো আমার বিয়ে , আমার দশ ব রের সংসার, দুটি সন্তান, স্বামী সবই আমার কাছে অথহীন। আমার জীবনে যে ভারোবাসার জন্য ব্যাকুল তার দেখা আমি পেয়েছি।
এরপর থেকে ওকে ছাড়া আমি কিছুই ভাবতেস পারি না, ওকে নিয়ে বাজার করি, মার্কেটে যাই, নিজে ডাক্তার দেখাই, বাচ্চাদের ডাক্তার দেখাই অর্থাৎ আমার সব কাজই ওর সাহায্য ছাড়া আমি করতে পারি না।ও আমার সব কাজ করে দিতে লাগলো। আমাকে ছোট বাচ্চার মত শাসন করতে থাকে ও। আমার খুব ভালো লাগে ওর শাসন।
ঈদেও দিন জিয়ার মাজারে গেলাম নিজের হাতে রান্না করে খাওয়াবো বলে। ঘরে গিয়ে ওকে হাতে তুলে খাওয়ালাম। খাওয়ার পর ও আমাকে ওর বাহুতে জড়িয়ে নিল। আমি তার স্পর্শে মাতাল হলাম। তার এক সপ্তাহ পর আমাদের প্রথম মিলণ। আমার মনে হলো আমার স্বামী সুপুরুষ তবে এমন ভাষোবেসে আর এত সময় নিয়ে মিলন আমি আগে কখনো পাইনি। এরপর থেকে আমাদেও প্রতিদিন মিলন হতো। আমার মনে হলো পৃথিবীর সব সুখ আমার কাছে এসে ধরা দিয়েছে।
ছেলেটির সঙ্গে আমার দৈহিক সম্পর্কের জন্য যে তাকে আমার ভালো লাগে তা কিন্তু নয়। তার সব কিছু আমার ভালো লাগে। আমার বাচ্চাদের যে কেনো কাজে সে এমনভাবে ছুটে আসে যেন এ দুটি তার নিজের সন্তান। আমার ও আমার বাচ্চাদের সব কাজ সে আমার স্বামী চেয়ে হাজার গুণ মমতা নিয়ে কাজ কওে যা আমাকে তার প্রতি আরো আকৃষ্ট করে তোলে। আমার স্বামী দেশে থাকলেও বাচ্চাদের প্রতি বেশ উদাসীন। আর আমার স্বামী খারাপ অভ্যাস সে কথায় কথায় আমার গায়ে হাত তোলে যা আমার একদম সহ্য হয় না। এর এজন্য আমার বাচ্চারা তর বাবার কাছে কম ভিড়ে। অথচ এ ছেলের কাছে তারা তাদের সব আবদার করে। তাদের কাছে এ ছেলেই অলিখিত বাবা হয়ে ওঠে।
যেহেতু আমার স্বামী, সন্তান রয়েছে তাই ওকে বললম তুমি বিয়ে কর। ও জানতে চাইলো, আমি বিয়ে করলে তুমি সহ্য করতে পারবে ?
আমার মনে হলো আমার বুকটা ভেঙ্গে যাচ্ছে তবুও আমার বাচ্চা দুটির কথা ভেবে সমাজের ভয়ে ওকে বললাম পারবো, তুমি বিয়ে কর। ও আমার মনের কথা বুঝতে পারলো। তবুও সবার কল্যাণে ও তার অভিভাবকদের পছন্দ করা মেয়েকে বিয়ে করতে মত দিল।
ওর বিয়ের সপ্তাহ খানেক আগে আমার মাথা খারাপ হয়ে গেল। আমার মনে হতে লাগলো আমার বুক থেকে ওকে কেউ ছিনিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। আমার সতীন নিয়ে আসছে ও। আমার রাতের ঘুম হারাম হয়ে গেল, খাওয়া ব হয়ে গেল। ও আমাকে বোঝাাতে লাগলো তুমি তো বলেছ বিয়ে করতে ? ছেলেটার বিয়ের দিন যত ঘনিয়ে আসছে ততই আমি অসুস্খ্য হয়ে পরছি।
ওর বিয়ের দিন আমি সারাদিন কিছু খেলাম না, আমার জানালা দিয়ে ওর ঘরের দিকে তাকিয়ে রইলাম সারারাত। যদিও সে আমাকে প্রতি ঘন্টায় ফোন করেছে, আমার খবর নিয়েছে,আমি কেমন আছি জানতে চেয়েছে। আমি কোনো কিছু মেনে নিতে পারছিলাম না, মনে হলো ও আমার কাছ থেকে অনেক দূরে চলে যাচ্ছে।
আমার চিন্তায় সে তার নতুন বউয়ের সাথে বাসর রাত পযর্ন্ত করলো না। খুব সকালে উঠে অফিসে চলে গেল। সারা দিন আমার সাথে কথা বললো, বিকেলে তাড়াতাড়ি ছুটি নিয়ে চলে এলো সবাইকে ফাকি দিয়ে আমার বাসায়, এসে আমাকে বুকে জড়িয়ে ধরলো আদর করলো তার নিজ হাতে আমাকে খাওয়ালো। সে বলে তুমি এমন পাগলামী করবে আমি জানতাম তাই আমি বিয়ে করতে চাইনি। আমি ওকে উজাড় করে সব কিছু দিয়ে দিলাম যাতে ওর বউয়ের কাছে যেতে না পারে আমি ওকে শর্ত দিলাম যে তুমি তোমার বউকে ছুতে পারবে না। আমার বউকি মানবে বল ? আমি শুধু তুমি আমার আর কারো হতে পারো না চলো আমরা বিয়ে করে ফেলি । আমি অনড় দেখে ও কথা দিল, আমি বললাম তুমি তোমার বউয়ের সাথে বেশী কথা বলতে পারবে না, তাকে আদর করতে পারবে না, ঘুরতে যেতে পারবে না, তিন চার দিন পর একদিন মিলিত হবে
ও তাতেও রাজি হলো, কারন সে আমাকে অনেক ভালোবাসে, আমাকে কষ্ট দিতে চায়না। আমার কোনো কষ্ট তার সহ্য হবে না। তাকে আমি তার পছন্দ মতো খাবার রান্না করে খাওয়াতাম। এরপর আমার সব কিছু বিলিয়ে দিয়ে ওর দেহের মাঝে লুটিয়ে পরতাম। প্রায়ই আমি হার মেনে নিতাম ওর কাছে। ও এতো সময় নিত যে আমরা তিন ঘন্টা একত্রে থাকলেও একবারের বেশি মিলনের সময় পেতাম না। কিন্তু তবুও ওকে বলতাম তুমি ইচ্ছা হলে আমার সঙ্গে যতা ইচ্ছা কর কিন্তু তোমার বউকে ধরবে না। ও আমার কথা রাখতো।
কিন্তু আমি বেশি দিন এভাবে থকতে পারলাম না। আবারো আমার আগে মতো অবস্খা হলো। খাওয়া ব, ঘুম নেই। আমার অবস্খা ধেখে ও আর ঠিকথাকতে পারলো না। আমরা দুজন শুধু জড়িয়ে ধওে কাদতে থাকি আর আমাদেও কি হবে তা ভাবি।
ও বুঝতে পারলো ওর বিয়ে করাটা মস্ত বড় বোকামি হয়েছে। ও কামনা করতে লাগলো ওর বউয়ের একটা নদোষ পেলেই বউকে ছেড়ে দেবে। এর আল্লাহর কি মেহেরবানী ওর বউয়ের সঙ্গে এক ছেলের বিয়ের পর যোগাযোগ ওর হাতে ধরা পড়লো। সে ওর বউকে বিদায়ের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করলো। এখন শুধু ওর বউয়ের সঙ্গে তার কাগজপত্রে বিদায় বাকি।
এর মধ্যে ঈদেও আগের দিন আমার স্বামী দেশে এলো। আমার স্বামী আসার পর আমি নিজেকে একটু সামলে নিলাম কিন্তু ও আমার স্বামীকে দেখে আমার মতো অবস্খা হলো ওর। ও আমর স্বামীকে সহ্য করতে পারলো না। আমার মতো ও আমাকে শর্ত দিল যেন আমার স্বামী আমাকে ছুতে না পারে। সপ্তাহে একদিন স্বামী সঙ্গে মিলিত হতে পারবো। স্বামীকে আদরও সোহাগ করা যাবে না। আমি ওর দেয়া শর্ত মেনে চলতে লাগলাম। স্বামী সন্দেহ করতে লাগলো। এর মধ্যে কে যেন আমার স্বামী কাছে আমাদেও সম্পর্কের কথা বলে দিল। সে আমার ঘর থেকে বের হওয় ব কওে দিল এমনকি বারান্দায় যাওয়া, ওকে একবার দেখা সব বন্ধ করে দিল। আমার মোবাইলটাও ছিনিয়ে নিল।
আমাদেও দুজন এর মাঝের সম্পর্ক জানতে চাইলো কিন্তু আমরা আমাদেও মাঝে সম্পর্ক জান গেলেও বলবো না। বলতাম কিন্তু বাচ্চা দুটির ভবিষ্যতের কথা ভেবে সমাজ আমাদের সম্পর্ক মেনে নেবে না এজন্য আমরা চুপ হয়ে গেলাম। আমার স্বামী ছেলেটিকে নানাভাবে ভয় দেখাতে লাগলো তার গুন্ডাপান্ডা দিয়ে। আমি জানি ও ভয় পায় না শুধু আমার মুখের দিকে তাকিয়ে সব অত্যাচার সহ্য করে যাচ্ছি। আর আমি আমার স্বামী যকন স্পর্শ করে তখন মনে হয় যেন একজন অচেনা পুরুষ আমাকে জোর করে ধর্ষণ করছে। আগে বাধা দিতাম এখন বাধা দিলে মারধোর করে। তাই তার কামনার সময় সিজেকে জিন্দা লাশের মতো করে দিই। তা-না হলে সে আমাকে মারে, আমার বাচ্চাগুলে কে মারে আর ভয় দেখায় আমার চেয়ে প্রিয় আমার ভালোবাসাকে গুন্ডা দিযে হত্যার। আমি ভয়ে সিটিয়ে থাকি। আমি ওকে দেয়া কথা রাখতে পারছি না আমার স্বামী নামের জন্তুটি আমাকে প্রতি রাতে তার হিংস্রতা দিয়ে ভোগ করে। তাতে নেই কোনো আনন্দ, নেই কোনো ভালোবাসা, থাকে শুধু ঘৃণা। জানি এ পৃথিবীতে আমি আমার প্রাণের চেয়ে প্রিয় ভালোবাসার কাছে যেতে পারবো না। তবে যদি খোদা আবার আমাদেও পুনর্জন্ম ঘটাই তবে সে জনমে আমি শুধু আমার ভালোবাসার প্রেমিক, ওর ঘওে বউ হয়ে জীবন কাটিয়েং যেতে চাই জানি এই জনমের অতৃপ্তি পরের জনমে হয়তো মিটবে।