জুঁই একটি ফুলের নাম..একটা ভয়ানক উত্তেজক টিন-এজ হার্ডকোর থ্রি-এক্স দেখতে দেখতে উপুড় হয়ে শুয়ে শুয়ে মাস্টারবেট করছিল জুঁই। করতে করতে এক এক সময় শরীর কাঁপতে থাকে, তখন থেমে যায়, তার পর শরীর ঠান্ডা হলে আবার শুরু করে। একটা বালিস ওর কোমরের নিচে, সেটার মাঝখানটা ভিজে চুপ-চুপে হয়ে গিয়েছে এর মধ্যে। এরকম করতে করতেই এক সময় ক্লান্ত হয়ে গেল সে। আস্তে করে বিছানার পাশে পর্দাটা টেনে দিয়ে ম্যাকবুকটা স্লীপ মোডে দিয়ে মাথার নিচে বালিসটা দিয়ে চিৎ হয়ে শুল। হাঁটুর নিচে দুটো বালিস এক সাথে দিয়ে দুই উরু ফাঁক করে ভাইব্রেটরটা পুসিতে ঢুকিয়ে নিশ্চল হয়ে শুয়ে থাকলো। মাঝে মাঝে ওটা কে হাত দিয়ে নাড়ায়, মাঝে মাঝে ক্লিট ঘষে, এভাবেই কখন যে ঘুমিয়ে পড়লো মনে নেই তার।হঠাৎ ঘুম ভেঙ্গে গেল জুঁইয়ের, ঘুম ভাঙ্গার পর টের পেল যে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। ওর শিয়রের দিকের জানালাটা উত্তর দিকে পড়েছে, তাই বৃষ্টির ছাঁট বা বাতাস আসে না, তবে বৃষ্টির হিমটা আসছে ঠিকই। উঠতে ইচ্ছে করছে না তার। বাঁ হাতটা মাথার নিচে দিয়ে ডান হাতটা দিয়ে শরীরের ওপর কিছু খুঁজলো সে, না পেয়ে মনে পড়ে গেল যে ওর গায়ে একটা সুতাও নেই। বিছানা থেকে উঠে সেগুলো নিয়ে আসাতে আলসেমী লাগছিল, তাই শুয়ে থাকলো। উরুসন্ধিতে ঠান্ডা হিমশীতল একটা স্পর্শে মনে পড়ে গেল ঘুমানোর আগে কি করছিল সে। ভাইব্রেটরটার চার্জ শেষ, কখন যে থেমে গিয়েছে, টের পায় নি। ঠান্ডা মেটালের স্পর্শটা ভাল লাগছে না, তাই পুসী থেকে বের করে নিল সেটা। তার পরই মনে পড়লো যে, কদিন আগে এটা এই বিছানার পাশেই চার্জ দিয়েছিল, চার্জারটা সেখানেই আছে। সকেটটা হাতের নাগালেই, তাই হাত বাড়িয়ে চার্জারটা খুঁজে নিয়ে ভাইব্রেটরটা চার্জে দিয়ে দিল। এর পর আবার দু’হাত মাথার নিচে দিয়ে শুয়ে শুয়ে এলোমেলো কথা ভাবতে লাগল। ভাবতে ভাবতেই কখন যে ডান হাত তার উরুসন্ধিতে চলে গেল টের পেল না। এলোমেলো চিন্তা করতে করতেই ক্লিটে হাত বুলাতে লাগলো। হঠাৎ টের পেল যে শরীর জাগছে। ডান হাতটা ক্লিট থেকে আরো নিচে নেমে যোনীদ্বারে পৌঁছালো। পিচ্ছিল কামরস টের পেল। মধ্যমাটা ঠেলে দিল ভেতরে… কোন বাধা না পেয়ে ঢুকে গেল। একটা অসহ্য সুখানুভুতি ওর হিপটাকে ওপরের দিকে ঠেলে দিল। আস্তে আস্তে কোমরটা ওপর-নিচ করতে শুরু করে দিল। এখন মধ্যমার সাথে তর্জনীও যোগ হলো ওর যোনী মন্থনে। কোমরটা আগু পিছু করতে করতে চোখ বুজে কল্পনা করে নিল আরেকটা শরীর যেন তাকেআদর করে যাচ্ছে। ওর গলা দিয়ে একটা হালকা শীৎকার বেরিয়ে যাচ্ছে সেটাও টের পেল না, অথবা টের পেলেও থামানোর চেষ্টা করলো না।মাসুদ পরীক্ষা শেষ করে মেসে গিয়ে গোসল সেরে খেয়ে দেয়ে ফ্রেশ হয়ে নিল। বাইরে কেমন একটা বৃষ্টি বৃষ্টি ভাব। ঠান্ডা বাতাস হচ্ছে হালকা। শীত আসতে এখনো দেরী, কিন্তু শীতের আগমনীর খবর দিচ্ছে যেন। নেক্সট পরীক্ষার নোটপত্র ব্যাগে ভরে কি মনে করে একটা সর্টস, একটা টি-সার্ট আর একটা এক্সট্রা ব্রিফ নিয়ে নিল ব্যাগে, যদি লাগে। জুঁইদের বাসা পর্যন্ত রিক্সা ছাড়া কোন গতি নেই। একটা রিক্সা নিয়ে নিল সে। জুঁইদের বাসায় পৌঁছুতে পৌঁছুতে বৃষ্টিতে ধরলো। ভাগ্য ভাল দারোয়ান ওকে মুখ চেনা চিনে, জুঁইয়ের সাথে আসতে দেখেছে কয়েকবার। তাই গেইট খুলে দিল, রিক্সা নিয়ে পোর্চের নিচে চলে এল সে। ভাড়া চুকিয়ে নেমে কলিং বেল বাজালো। জুঁইদের বাসায় কোন কাজের লোক নেই জানে সে, তাই জয়া ভাবীকে দরজা খুলতে দেখে অবাক হলো না। ভাবী ওকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানালেন। “জুঁই ওপরে, সোজা ওপরে চলে যাও” বলে সিঁড়ি পর্যন্ত এগিয়ে দিতে গিয়ে, কী মনে করে বললেন “এক কাজ করো, চা বসিয়েছিলাম, এক কাপ চা খেয়ে যাও”। মাসুদের ঠান্ডা লাগছিল, তাই রাজী হয়ে গেল। ভাবী ওকে নিয়ে ডাইনিং রুমে চলে এলেন। “তুমি বসো, আমি চা’টা ঢেলে আনি” বলে রান্নাঘরে ঢুকে গেলেন। ভাবী বেশ পাতলা ফিনফিনে একটা কাফতান পরে আছেন। মাসুদ খেয়াল করছে ভাবী ভেতরে ব্রা পরেন নি, আর বাঁ দিকের ব্রেস্টের নিপলের ওপর আর নাভীর কাছে জামাটা ভেজা। ভাবী যে ভাইয়ার সাথে বিছানায় একান্ত সময় কাটাচ্ছিলেন সেটা আর তাকে বলে দিতে হলো না। ভাবীর প্রাইভেসী ভাঙ্গার জন্য খানিকটা লজ্জা পেল সে। ভাবী রান্না ঘরে ঢোকার সময় মাসুদের চোখ চলে গেল ভাবীর হিপে। হালকা খয়েরী কাপড়ের ওপর অফ-হোয়াইট ফুল ফুল প্রিন্টের ঢোলা কাফতানের ভেতর দিয়ে ভাবীর শরীরের ফর্সা আভা স্পষ্ট ফুটে আছে। নিতম্বের পেছন দিকে ফর্সা শরীরের ওপর একটা তিন কোনা হালকা গোলাপী আভা দেখে বুঝলো ভাবী হালকা গোলাপী পেন্টী পড়ে আছেন। দেখে এই ঠান্ডাতেও মাসুদের উরুসন্ধিতে বেশ গরম অনুভুতি হলো। ভাবী দু’কাপ চা নিয়ে এসে মাসুদের মুখোমুখি বসলেন। হাত বাড়িয়ে একটা কাপ এগিয়ে দিলেন মাসুদের দিকে। কাফতানের সর্ট স্লিভ আর আর্মপিটের নিচের বড় কাটা দিয়ে আর্মপিটের গায়ে ঘামে ভিজে লেপ্টে থাকা হালকা চুল আর মাঝারী ব্রেস্টের খানিকটা দেখে নিল সে এই ফাঁকে। মাসুদ চা’টা নিল। খেয়াল করলো ভাবীর চুল বেনী করা হলেও বেশ অবিন্যস্ত, ঘামে ভিজে ঘাড়ের কাছে শরীরের সাথে লেপ্টে আছে।চা খেতে খেতে ভাবী ওর পরীক্ষার খবর, বাড়ীতে বাবা-মার খবর নিলেন। মাসুদ ততক্ষনে খানিকটা ফ্রী হয়ে এসেছে। এর পরেও ওর চোখ চলে যাচ্ছে ভাবীর খোলা গলা আর বুকে। ভাবী বাঁ হাতটা টেবিলের ধারে রেখে তাতে ব্রেস্ট ঠেকিয়ে বসেছেন। একটা কমন ভঙ্গী, সবাই ক্যাজুয়ালী এভাবেই বসে, কিন্তু মাসুদের কাছে এখন সেটাই খুব সেক্সী মনে হচ্ছে। কাপড় ভেদ করে ব্রেস্ট আর নিপল যেন বেরিয়ে আসবে।“ভাবী কি কাজ করছিলেন নাকি?”“না তো!”“ওঃ আমি ভাবলাম বাথরুমে জামা-কাপড় ধুচ্ছিলেন!”জয়ার ততক্ষনে খেয়াল হলো যে ওর জামার ব্রেস্টের কাছে ভেজা। ভেজা জায়গাটা একবার দেখে নিয়ে বাঁ হাতটা টেবিলের ওপর তুলে দিয়ে ঢাকলো সেটা, “ওঃ বেসিনের কলটা ঠিক মতো কাজ করছে না, হঠাৎ হঠাৎ পানি ছিটকে আসে। জামা কাপড় এমন ভাবে ভিজে যায় যে লজ্জায় পড়ে যেতে হয়।” চায়ের কাপে হালকা চুমুক দিয়ে হেসে ফেললেন, “তাছাড়া এখন আবার তন্ময় মানে তোমার ভাইয়া ঢাকায় নেই। এমন উলটা পালটা জায়গায় ভেজা দেখলে যে কেউ এগুলোর আবার অন্য মিনিং বের করে ফেলতে পারে, হি হি হি…। আর তুমি এমন সময় এলে, যে জামা বদলানোর সময় পাই নি।” ভাবীর সহজ সরল স্বীকারোক্তিতে মাসুদ হেসে ফেললো…“না মানে আমি ওরকম কিছু ভাবি নি…”“এই সব উলটা পালটা জিনিস ছাড়া মাথায় আর কিছু নেই, না!”হালকা হাসাহাসি করতে করতেই চা শেষ হয়ে এল। “ঠিক আছে, তুমি সোজা ওপরে চলে যাও, আমি এগুলো উঠিয়ে রাখি” বলে চায়ের কাপ দু’টো তুলে নিয়ে ভাবী রান্না ঘরের দিকে হাঁটা দিলেন। মাসুদ ব্যাগটা তুলে নিতে নিতে জামার ভেতর দিয়ে ভাবীর হালকা গোলাপী পেন্টী পড়া খোলা শরীরটা দেখতে দেখতে তন্ময় ভাইয়ার ভাগ্যটাকে ঈর্ষা করতে লাগলো। ব্যাগটা তুলে নিয়ে “ভাবী আসি” বলে চেয়ার থেকে উঠে পড়লো।রান্না ঘরের বেসিনের কলের শব্দ আর বাইরের বৃষ্টির শব্দ ছাপিয়ে ভাবীর গলা পেল, “ঠিক আছে। সোজা ওপরে চলে যাও।”ওপরে এসে মাসুদ পড়লো আরেক বিপদে, জুঁইয়ের ঘরের দরজা বন্ধ। নক করলো, কিন্ত সাড়া পেল না, এদিকে বাতাসে ছাদের দরজাটা খুলে আছে, আর তাই দিয়ে বৃষ্টির ছাঁট এসে তাকে ভিজিয়ে দিচ্ছে। বেশ কিছুক্ষন দাঁড়িয়ে থাকার পর মনে পড়লো ভাবী বলেছিল যে জুঁই ঘুমোচ্ছে। কী মনে করে ব্যাগটা মাথায় দিয়ে বৃষ্টিতেই ছাদে বেরিয়ে এলো। ছাদে আরেকটা দরজা আছে জানে। দরজা পর্যন্ত পৌঁছুতেই ভিজে গেল সে। দরজার ওপরে একটা স্ল্যাব বেরিয়ে এসে বড় একটা শেড দিয়েছে, কোন রকমে সেখানে এসে দাঁড়ালো। মাথা খানিকটা বাঁচলেও বৃষ্টির ছাঁটে জামা ভিজেযাচ্ছে। হাত বাড়িয়ে দরজার নবটা ঘোরালো। স্বস্তির নিশ্বাস ফেললো, দরজাটা খুলে গেল সাথে সাথে।জুঁইয়ের তখন চরম অবস্থা। যে কোন সময় ওর হয়ে যাবে। ঠিক সেই সময় ছাদের দিকের দরজা খোলার শব্দ পেল ও। ওর শরীর আর হিসহিসে শীৎকার তখন নিয়ন্ত্রনের বাইরে, যে ইচ্ছে আসুক, যে ইচ্ছে দেখুক, যা ইচ্ছে ভাবুক! ওর শরীরের যন্ত্রনা এখন ও ছাড়া কেউ বুঝবে না। ওর শীৎকার শুনে এখন যদি কেউ উঁকিও দেয়, তার কিছু আসবে যাবে না। শরীরটা আগে ঠান্ডা করতে হবে। হঠাৎ করে শরীরটা পাশ ফিরে গিয়ে কুঁকড়ে গেল। ডান হাতের তর্জনী আর মধ্যমা যতোটা সম্ভব ভেতরে ঢুকিয়ে দিলো সে… আহঃ কি শান্তি! মাথাটা একদম ফাঁকা হয়ে গেল তার। কতোক্ষন গেল বলতে পারবে না, তবে খানিকটা ধাতস্থ হবার পর গলা তুলে হালকা করে জিজ্ঞেস করলো “কে?” তার পরেই মনে পড়লো হয় শামা, নয়তো মাসুদ ভাই। মাসুদ ভাই হবার সম্ভাবনাই বেশী। “কে? মাসুদ ভাই?”মাসুদ ঘরে ঢুকেই আগে ব্যাগটা দরজা থেকে খানিকটা দূরে ছুঁড়ে ফেলে দিল। কারন সে ঢুকার সাথে সাথেই দরজার ঠিক সামনের জায়গাটাতে পানি জমে গিয়েছে। ব্যাগটা ছুঁড়ে দিয়ে নিজের দিকে নজর দিল সে, সিঁড়ি ঘরের লবী থেকে খোলা ছাদ পেরিয়ে দরজা পর্যন্ত আসতে আসতেই এক দম ভিজে চুপ চুপে হয়ে গিয়েছে সে। শরীর বেয়ে পানি ঝরছে তার, যেখানে দাঁড়িয়ে আছে, সেখানে একটা ছোট খাট পুকুর হয়ে গিয়েছে। ব্যাগে করে এক্সট্রা জামা এনেছে বলে নিজেকে ধন্যবাদ দিল সে। শরীর কেচে পানি ঝরাতে লাগলো সে। বৃষ্টির শব্দ ছাপিয়ে অন্য একটা শব্দ কানে এলো তার এতোক্ষনে। কিন্তু ভেবে পেল না, এই শব্দ এইখানে কেন! খুব পরিচিত একটা শব্দ। হালকা গোঙ্গানী মিশ্রিত শীৎকার। থ্রি-এক্স মুভিগুলোতে দেখে ও শুনে অর্জিত অভিজ্ঞতায় জানে যে মেয়েদের অর্গাজমের ঠিক আগে তারা এ ধরনের শব্দ করে। কিন্তু জুঁইয়ের ঘরে এই শব্দ এলো কোথা থেকে। জুঁই কি থ্রি-এক্স মুভি দেখছে নাকি? উথাল পাথাল একটা হুটোপুটির শব্দে বুঝলো যে মেয়েটার অর্গাজম হয়ে গিয়েছে। মাসুদ কিছু বুঝতে না পেরে কাঠ হয়ে দাঁড়িয়ে থাকলো। তবে এটুকু বুঝলো যে শব্দটা জুঁইয়ের পর্দা দেয়া বিছানা থেকে আসছে, আর লাইভ। ভিডিও না। জুঁই কি কারো সাথে সেক্স করছে নাকি? এই সম্ভাবনাটা মাথায় আসার পর ভয়ে কাঠ হয়ে গেল সে। মাথাটা কেমন ঝিম ঝিম করতে লাগলো তার। হঠাৎ জুঁইয়ের গলা পেল, “কে?” কি বলবে বুঝতে না পেরে দাঁড়িয়ে থাকলো। আবার জিজ্ঞেস করলো জুঁই “কে? মাসুদ ভাই?” মাসুদ কোন রকমে উত্তর দিল “হ্যাঁ, আমি…”, গলায় যেন ব্যাং ঢুকেছে। জুঁইয়ের কন্ঠটা তার কাছে ক্লান্ত না ঠিক, বলা ভাল রতিক্লান্ত মনে হলো। জুঁই এই ঘরেই আর একটা ছেলের সাথে সেক্স করছে! মাসুদের পেনিস ইন্সট্যান্ট শক্ত হয়ে দাঁড়িয়ে গেল। সেই সেদিন জুঁইয়ের ব্রা-পেন্টী পড়া ছবিটা দেখার পর থেকে নিয়মিত কল্পনায় তার সাথে সেক্স করে আসছে সে। জুঁইয়ের ছবিটা প্রথম দিন নষ্ট হয়ে গেলেও নোটটা যত্ন করে রেখে দিয়েছে।জুঁই লিখেছিল যে নেক্সট যেদিন সে জুঁইদের বাসায় আসবে, রাতে ঘুমিয়ে না পড়লে জুঁইকে ব্রা-পেন্টী ছাড়া দেখতে পাবে, মানে জুঁইয়ের পুরো নগ্ন শরীরটা দেখতে পাবে সে। নোটটা দেখে জুঁইয়ের নগ্ন শরীরটা কল্পনা করে মাস্টারবেট করে সে প্রতিদিন। আরো কিছু যদি করতে দেয়, সেই আশায় সে জুঁইয়ের জন্য কিছু এক্সক্লুসিভ কালেকশানও নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে কদিন ধরে, যাতে জুঁইয়ের ঘরে এলে ওকে দিতে পারে। চারটা প্রাইভেট পার্টির ভিডিও, ঢাকারই। সে পেয়েছে তার এক ক্লাসমেটের কাছ থেকে, ওর মেস মেটও বলা চলে। একটা আগেই পেয়েছিল, আর তিনটা পেয়েছে দিন দশেক আছে। দেখার আগে মাসুদের ধারনা ছিল না যে ঢাকাতেও এমন পার্টি হয়।মাসুদের গলা পেয়ে জুঁই বললো “মাসুদ ভাই, আয়নার সামনে আমার জামা কাপড়গুলো পড়ে আছে, একটু কষ্ট করে দিবেন?” মাসুদ এতোক্ষনে খেয়াল করলো যে তার মুখোমুখি ১৫ ফুট দূরে দেয়ালে বড় আয়নাটার সামনে জুঁইয়ের জামা আর অন্তর্বাস ছড়ানো ছিটানো অবস্থায় পড়ে আছে। তারমানে জুঁই সত্যি সত্যিই উলঙ্গ হয়ে আছে! ওর আর বিবস্ত্র জুঁইয়ের মাঝে কেবল একটা পর্দার বাধা! কিন্তু ছেলেটা কে বুঝতে পারছে না!মাসুদের গলা পেয়ে জুঁই আস্বস্ত হলো, কিন্তু এই অবস্থায় তো বেরুনো যাবে না, আর ওর জামা কাপড়ও সব বাইরে। বৃষ্টি না হলে মাসুদ ভাইকে বাইরে যেতে বলে বেরুনো যেত। এবার? গলাটা একটু তুলে বললো বললো “মাসুদ ভাই, আয়নার সামনে আমার জামা কাপড়গুলো পড়ে আছে, একটু কষ্ট করে দিবেন?” তার পরেই কি মনে করে বিছানার ওপর উঠে বসে পর্দার আধা ইঞ্চি ফাঁকা দিয়ে তাকিয়ে দেখলো মাসুদ ভাই এক দম ভিজে চুপ চুপে হয়ে আছেন। ঘরে ঢুকলে পুরো ঘর ভিজে যাবে। হঠাৎ করেই দুষ্টু বুদ্ধিটা খেলে গেল মাথায়।“মাসুদ ভাই, আপনি দাঁড়ান। আমিই নিয়ে নিচ্ছি, আপনি চোখ বন্ধ করে দাঁড়ায় থাকেন। খুলবেন না কিন্তু!” মাসুদ কি করবে বুঝে উঠতে পারছে না। জুঁই ওকে জামা কাপড় দিতে বললো, তার পর আবার মানা করে দিল। অবশ্য ও গেলে ঘরটা ভিজে যেত। কিন্তু জুঁই ওকে চোখ বন্ধ করে রাখতে বলেছে। তার মানে ওর সাথে কে আছে এখন দেখা যাবে না। “আচ্ছা, জুঁই কি নগ্ন হয়ে ওর সামনে দিয়ে জামাকাপড় তুলে নিয়ে পড়ে ফেলবে?” হঠাৎ করেই ভাবনাটা খেলে গেল মাথায়। যা থাকে কপালে, চোখ বন্ধ করে ফেললো সে। তাছাড়া ছেলেটা কে দেখতে চাইছে না সে, খুন করে ফেলতে পারে রাগে।মাসুদ চোখ বন্ধ করার পর জুঁই তার পায়ের কাছে কাঁথা আর বালিসের সাথে রাখা দুটো ছোট্ট টাওয়েলের একটা তুলে নিল। ওটাকেই বাঁ হাতে ব্রেস্টের ওপর চেপে ধরে বিছানা থেকে নেমে এল। আয়নার সামনে উবু হয়ে বসে জামা-কাপড় তুলতে গিয়ে নিজের সাইড ভিউ দেখলো আয়নায়। খুব সেক্সী লাগছে তাকে। টাওয়েল শরীর তো ঢাকতেই পারে নি, উলটো আরো বেশি প্রকাশ করে দিচ্ছে। ওর সাইড পুরোটাই খোলা, এমনকি পাশ থেকে পুরো ব্রেস্ট দেখা যাচ্ছে। আর পেছনদিক তো পুরোটাই খোলা। জামাগুলো নিয়ে উঠে দাঁড়ালো জুঁই। ছোট্ট টাওয়েলটা ওর পুরো সামনের দিকটাও ঢাকতে পারে নি। টাওয়েলের দু’পাশ থেকে ব্রেস্টের খানকটা দেখা যাচ্ছে, আর নিচে পুসীর অর্ধেকটাই খোলা। আসলে এটা তো আর বড় বাথ টাওয়েল না, এটা বিছানায় থাকে সেক্স করার পর নিজেকে ক্লিন করার জন্য।বাথরুমের দিকে হাঁটা ধরলো সে, মাসুদের সামনে দিয়ে গিয়ে রুমের অপর প্রান্তে ওর বাথরুম। মাসুদ এখনো চোখ বন্ধ করে দাঁড়িয়ে আছে। শীতে কাঁপছে সে এখন। এই সময়ের বৃষ্টির পানি খুব ঠান্ডা হয়। বেশীক্ষন ভিজলে সমস্যা। হঠাৎ জুঁইয়ের চোখ চলে গেল মাসুদের কোমরে। জিন্সের প্যান্টের চেইনের কাছটা মনে হচ্ছে একটু টাইট হয়ে ফুলে আছে। হেসে ফেললো জুঁই। কিন্তু মাসুদকে ঠান্ডায় কাঁপতে দেখে জামা কাপড়গুলো পাশের চেয়ারে রেখে মাসুদের সামনে গিয়ে দাঁরালো।“মাসুদ ভাই, আপনি তো দেখি ঠান্ডায় কাঁপছেন!”মাসুদ কিছু বললো না, তার আসলে কথা বলার মতো অবস্থা নেই।“কি হলো, জ্বর চলে এল নাকি মাসুদ ভাই!” বলে ডান হাতের উলটো পিঠ মাসুদের কপালে ঠেকালো। “মাসুদ ভাই, আর কষ্ট করে চোখ বন্ধ করে থাকারে দরকার নাই, চোখ খোলেন তো!” টেম্পারেচার এখনো নর্মাল, তবে মাথা-টাথা না মুছলে কিছুক্ষনের মধ্যেই ঠান্ডা লেগে যাবে। মাসুদ চোখ খুললো, তখনো জুঁইয়ের ডান হাত তার কপালে। চোখ খুলেই প্রথমেই ওর চোখ চলে গেল জুঁইয়ের ডান আর্মপিটে। হালকা চুল আছে, ফিনফিনে পাতলা। দেখে মনে হচ্ছে সপ্তাখানেক সেভ করে নি। এখনো ঘামে ভিজে লেপ্টে আছে গায়ের সাথে। তার পরেই চোখ গেল ডান ব্রেস্টে। ব্রেস্টের খানিকটা বেরিয়ে আছে, খুব বড় না, মাঝারি বলা চলে, অনুমান করল 34-B সাইজের ব্রেসিয়ার পরে জুঁই। বাকিটা ব্রেস্ট একটা হালকা নীল টাওয়েল দিয়ে ঢাকা। একটা নেইলপলিশ ছাড়া হালকা গোলাপী নখের মসৃন পেলব আঙ্গুল টাওয়েলের ওপর আলতো করে ফেলে রাখা ডান ব্রেস্টের ওপর, আর হাতের আঙ্গুলের মালিক হাতটা বাঁ দিকের ব্রেস্টের ওপর টাওয়েলের ওপর রাখা। ক্লিভেজ দেখা যাচ্ছে না।টাওয়েলটা ব্রেস্টের চূড়ো পার হয়ে নিচের দিকে নেমে গিয়েছে। তবে দেখে মনে হচ্ছে না, খুব বেশী দূর নেমেছে বা যেই শরীর ঢাকার জন্য টাওয়েলটা গায়ের ওপর রাখা, সেটা ঢাকতে পারছে। দু’জনের মধ্যে যদি খানিকটা দুরত্ব থাকতো, তাহলে জুঁইকে টাওয়েল চাপানো অবস্থায় দেখতে কেমন লাগতো চিন্তা করেই মাসুদের পেনিস ওর প্যান্ট ছিঁড়ে ফেলার চেষ্টা করলো আরেকবার।মাসুদের সম্বিত ফিরলো যেন, না, সে স্বপ্ন দেখছে না। সত্যি সত্যি জুঁই একটা মিনি সাইজের টাওয়েল গায়ে দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে ওর সামনে।“দাঁড়ান তো চুপ করে, আমি মাথাটা মুছিয়ে দিচ্ছি, ঠান্ডা লাগবে না।” কথাটা শেষ হবার সাথে সাথে মসৃন গোলাপী নখওয়ালা পেলব আঙ্গুলগুলো টাওয়েলটাকে পেঁচিয়ে ধরে টাওয়েলটাকে তুলে নিয়ে ওর চোখ ঢেকে দিল। মাসুদ টের পাচ্ছে হালকা করে দুটো নরম হাত টাওয়েল দিয়ে ওর মাথা মুছিয়ে দিচ্ছে। কিন্তু টাওয়েলের এক মাথা ওর চোখের সামনে ঝুলে থেকে ওকে জুঁইয়ের শরীরটা দেখার সুযোগ নষ্ট করে দিচ্ছে।মাসুদের গা ঘেঁষে দাঁড়িয়ে ওর চুল মুছে দিচ্ছে জুঁই। একটু আগেও মাস্টারবেট করার সময় ঘামছিল সে, এখনো ঘাম শুকায় নি। আর এখন মাসুদের গা ঘেঁষে দাঁড়িয়ে ঠান্ডা পানির হিম আর একই সাথে মাসুদের সেনসেশান টের পাচ্ছে জুঁই। “এক দম ভিজে গেছেন মাসুদ ভাই, এই বৃষ্টির মধ্যে আপনি ছাদে বেরুলেন কেন? আবার নিচে নেমে গেলেই পারতেন, এখন ঠান্ডা লাগলে কি হবে বলেন তো?” কথা বলতে বলতেই মাথা মুছিয়ে দিচ্ছে সে।“জামাটা খুলে ফেলেন তো মাসুদ ভাই!” বলে বাঁ হাতে মাথা মুছতে মুছতে অভ্যস্ত হাতে মাসুদের সার্টের বোতাম খুলে সার্টটা শরীর থেকে খুলে ফেলে দিল। তার পর প্যান্টের বেল্ট, বোতাম আর চেইন খুলে দিতেই হালকা ঢোলা ভিজে ভারী হয়ে থাকা জিন্সটা খুলে পড়ে গেল গোড়ালির কাছে।জুঁই এমন ভাবে এক হাতে মাথা মুছতে মুছতে অন্য হাতে ওর জামা প্যান্ট খুলে দিল যে মাসুদ বাধা দেবারও সুযোগ পায় নি। তবে এবার ও চোখে দেখতে না পেলেও জুঁইয়ের স্পর্শ পাচ্ছে শরীরে। সার্টটা খুলে ফেলার পর হাত নাড়ানোর তালে তালে ভেজা বুকে জুঁইয়ে নিপলের হালকা স্পর্শ পাচ্ছে সে। আর প্যান্টটা খোলার পর শক্ত পেনিসটা যেন খানিকটা জায়গা পেল আরো বড় হবার। প্যান্টটা পিছলে নেমে যাবার পর পরই নির্দেশ পেল, “প্যান্টটা সরান তো মাসুদ ভাই!”। মাসুদ পা তুলে প্যান্টটাকে সরিয়ে দিল পাশে। এখনো ওর চোখের সামনে টাওয়েল, তাই কিছু দেখতে পাচ্ছে না। তবে জুঁইয়ের ব্রেস্ট আর নিপলের স্পর্শ সুখে সেটার জন্য দুঃখ নেই তার। বুকে জুঁইয়ের নিপলের হালকা স্পর্শ আর হঠাৎ হঠাৎ ঝুঁকে আসার জন্য মুহুর্তের জন্য চেপে বসা ব্রেস্টের নরম চাপের আবেশে চোখ বন্ধ হয়ে এলো তার। হঠাৎ মাথার ওপর থেকে হাতটা সরে গেল, সাথে টাওয়েলটাও। টের পেল দু’টি হাত আলতো করে ওর গা মুছিয়ে দিচ্ছে, বুক পেট কাঁধ। হঠাৎ করে নিজেকে জুঁইয়ের আলিঙ্গনের মধ্যে আবিষ্কার করলো সে। জুঁই ওর পিঠ মুছে দিচ্ছে তখন। ঘাড়ের কাছ থেকে মুছতে মুছতে কোমরের কাছে নেমে গেল ওর হাত, হঠাৎ করেই আন্ডারওয়্যারে ঢাকা ওর পেনিস জুঁইয়ের শরীরের স্পর্শ পেল। জুঁই ছিটকে সরে গেল খানিকটা “আউ… ঠান্ডা…” জুঁইয়ের উষ্ণ আলিঙ্গন থেকে মুক্ত হয়ে আপনা থেকেই চোখ খুলে গেল তার। জুঁই ততোক্ষনে হাঁটু মুড়ে বসে ওর কোমরের নিচ থেকে পা মুছে দিচ্ছে। ওর চোখের সামনে কেবল জুঁইয়ের এলোচুলে ছাওয়া পিঠ। এক মাথা চুল ওর পিঠ আর নিতম্ব জামার মতো ঢেকে রেখেছে, তবে হিপের ফরসা ত্বক মাঝে মাঝে চুলের ফাঁক দিয়ে দেখে মাসুদের পেনিস যেন আরো শক্ত হয়ে যাচ্ছে।আন্ডারওয়্যারের নিচ থেকে পায়ের পাতা পর্যন্ত মুছে দেয়ার পর মাসুদের শরীরে কেমন যেন একটা উষ্ণতা খেলা করে গেল, কেমন যেন একটু গরম গরম। । পেনিসটা মনে হচ্ছে ক্রমশ বড় হচ্ছে। ওর গা মোছা শেষ, ওপর থেকে দেখলো জুঁই টাওয়েলটা পাশে রাখলো। তার পর আলতো করে ওর আন্ডারওয়্যার টেনে নামিয়ে দিল। হালকা উষ্ণতার মধ্যে হঠাৎ করেই যেন হীমশীতল স্পর্শ কাঁপিয়ে দিল ওকে। আন্ডারওয়্যার গোড়ালীতে নেমে গেল টের পেয়ে পা একটু তুলে নিজেকে মুক্ত করে নিল মাসুদ। জুঁই আবার টাওয়েলটা তুলে নিয়ে কোমরের ভেজা অংশটা মুছে দিতে লাগলো। কোমর, নিতম্বের ভাঁজ, টেস্টিকলস এমনকি পেনিসেও টাওয়েলের স্পর্শ পেল সে। টাওয়েলটা সরিয়ে নেবার পর পেনিসের মুন্ডুতে জুঁইয়ের গরম নিঃশ্বাস টের পেল, মনে হলো পেনিসটা আরো বড় হয়ে জুঁইয়ের মুখে গিয়ে ধাক্কা মারবে।মাসুদের আন্ডারওয়্যার খুলে ফেলার পর ওর পেনিসটা যেন জুঁইয়ের সামনে ছিটকে বেরিয়ে এলো। এখনো হালকা ভেজা। জুঁই টাওয়েলটা তুলে নিয়ে মাসুদের প্রাইভেট পার্টস মুছে দিল যত্ন করে। বাইরে মুষলধারে বৃষ্টি, দরজা এখনো হাট খোলা, হালকা বৃষ্টির ছাট আসছে এখনো, ওর সামনে একটা ছেলের নগ্ন শরীর, উষ্ণ। তার উত্থিত পুরষাঙ্গ সেক্স করার জন্য রেডি। জুঁইয়ের পুসী আবার ভিজে গিয়েছে, মনে হচ্ছে আগুন জ্বলছে ওখানে, ব্রেস্ট দুটো নিথর, নিপল দুটো শক্ত, উত্তেজনায় কাঁপছে থির থির করে। পেনিসের মুন্ডী থেকে ঠিক দু ইঞ্চি দূরে ওর মুখ। ডান হাতে আলতো করে পেনিসটা ধরলো সে। হাতটা একটু আগু পিছু করে যেন কথা বলে নিল খানিকটা। ওর বাঁ হাত চলে গিয়েছে নিজের পুসীতে। ক্লিটে আঙ্গুল ঘষছে সে। হাতটা ক্লিট থেকে পুসী পর্যন্ত আসা-যাওয়া করতে করতেই পেনিসটা ধরে মুখের কাছে এনে জিভটা মুন্ডিতে বুলিয়ে নিল বার দুয়েক। জুঁই জানে মাসুদ ভার্জিন, তাই যা শুরু করেছে তাতে ফুল ইন্টারকোর্স করতে পারবে না এখন, ধরে রাখতে পারবে না। পেনিস সাক করেছে সে আগেও, কিন্তু কখনোই সিমেন মুখে নেয় নি। তবে এবার প্রস্তুতি নিয়ে নিল যে নিয়ে নেবে মুখে। সবাই যেভাবে সখ করে নেয় তাতে জিনিসটা খারাপ হবার কথা না। বার কয়েক মুন্ডিতে জিভ বুলিয়ে পেনিসটা মুখে পুরে নিল সে, সাথে বাঁ হাতের তর্জনী আর মধ্যমা ঢুকিয়ে দিল পুসীর ভেতর। আরামে চোখ বন্ধ করে ফেললো সে।মাসুদ হঠাৎ একতা উষ্ণ হাতের স্পর্শ পেল পেনিসে। হাতটা খেলা শুরু করে দিল তার সাথে। ওপর থেকে দেখলো জুঁই বাঁ হাতটা হাঁটুতে ভর দেয়া বাঁ পায়ের পাশ দিয়ে ভেতরে চালান করে দিল। জুঁইয়েরও খুব সেক্স উঠেছে বুঝে গেল সে, কিন্তু ওর হাতে কিছুই নেই এখন। ওর ভাল লাগছে। টের পাচ্ছে পেছনে দরজা খোলা, কেউ এসে পড়লে কেলেঙ্কারী হয়ে যাবে। এই রকম বৃষ্টি ভেজা সন্ধায় একটা বিবস্ত্র মেয়ে ওকে নগ্ন করে ওর পেনিস নিয়ে খেলছে, সাক করে দিচ্ছে, সুদূর কল্পনাতেও তার এমন স্বপ্ন ছিল না। কিন্তু ব্যপারটা স্বপ্নের থেকেও মধুর, যা কেলেঙ্কারী হয় হবে। হঠাৎ করেই পেনিসের মুন্ডিতে একটা ভয়ানক গরম ভেজা রুমালের মতো স্পর্শ পেয়ে ছটফট করে উঠলো সে। কিন্তু নড়তে পাড়লো না, জুঁই শক্ত হাতে ওর পেনিস ধরে রেখেছে। ভেজা গরম বস্তুটা ওর মুন্ডির ওপর এপাশ ওপাশ করছে। মাসুদ বুঝলো ওটা জুঁইয়ের জিভ। গরমের ছ্যাঁকাটা সয়ে যাবার পর প্রচন্ড একটা ভাল লাগা গ্রাস করে নিল ওকে। বুঝতে পারছে বেশীক্ষন ধরে রাখতে পারবে না। সেটা নিয়ে তার কোন চিন্তাই নেই এখন, যেটা হচ্ছে সেটাও কম না! তার পরেই টের পেল যে ওর পেনিসটা একটা আগুনের গুহায় ঢুকে গেল। জুইয়ের জিভটা সাপের মতো পেঁচিয়ে পেঁচিয়ে ধরছে ওকে। জুঁইয়ের দাঁতের শক্ত ধার ধার স্পর্শও পাচ্ছে সে। হালকা করে জুঁই ওর পেনিসটাকে মুখের ভেতর আগু পিছু করছে। তবে অ্যাডাল্ট গল্পের বইতে পড়া কোন বর্ণনার সাথে ব্যাপারটা মিলছে না। কোন ব্লো-জবের বর্ণনাতেই দাঁতের স্পর্শের কথা লিখে নি, পুড়ে যাওয়া অনুভুতিটার কথা লিখে নি, কাঁটা কাঁটা ধার ধার স্পর্শগুলোর কথা লিখে নি কোথাও। মুভিতেও দেখেছে এই রকম সময় কতো রকম সেক্সী শব্দ করতে, কিছুই হচ্ছে না। সব কেমন নীরবে হয়ে চলেছে। জুঁই ওর পেনিস সাক করে দিতে দিতে নিজের পুসী ফিঙ্গারিং করে যাচ্ছে, জুঁইয়ের কোমরের নড়াচড়া দেখে বুঝতে পারছে সে। বইতে পড়েছে যে এই সময় ছেলেরা হাত বাড়িয়ে মেয়েদের ব্রেস্ট টিপে দেয়, কিন্তু মাসুদ তো পারছে না, মনে হচ্ছে ওর হাত পৌঁছাবে না জুঁইয়ের ব্রেস্ট পর্যন্ত। তবে ডান হাত বাড়িয়ে জুঁইয়ের মাথার পেছনে হাত রাখালো। হালকা চাপে সাকিং এর গতি বাড়াতে ইশারা করলো। ওর হয়ে আসছে… চোখ মুখ কুঁচকে বড় করে হাঁ করে শ্বাস নিতে লাগলো সে, চার দিক অন্ধকার হয়ে গেল ওর। বাতাসে যেন আর অক্সিজেন অবশিষ্ট নেই ওর জন্য। আর পারছে না সে, হঠাৎ করেই হার মেনে নিল সে, ওর পেনিসের গরম মুন্ডীটাতে যেন একটা ভয়ানক সুখের বিষ্ফোরন ঘটে গেল। মাথাটা হঠাৎ করেই ফাঁকা হয়ে গেল তার। তার পর আর মনে নেই কিছু।জুঁইয়ের হয়ে আসছে, মনে হচ্ছে এক্ষুনি মাসুদ ভাইকে ফ্লোরের ওপর শুইয়ে ওর পেনিসটা পুসীতে ঢুকিয়ে নিয়ে ফাকিং শুরু করে। কিন্তু এতোটা সময় পাবে না। একটু নড়াচড়া করলেই অর্গাজম হয়ে যাবে। টের পাচ্ছে মাসুদ ভাইয়েরও একই অবস্থা। পুসীর ভেতরে ওর আঙ্গুল চালনা দ্রুত হচ্ছে। মাসুদ ভাইয়ের হাতের চাপ অনুভব করলো মাথার পেছনে। মুখের গতিও দ্রুততর হলো পেনিসের ওপর। টের পেল ওরও হয়ে যাবে যে কোন মুহূর্তে। মাসুদের পেনিসটা এক ঝটকায় মুখ থেকে বের করে নিজের দিকে পুরো মনযোগ ঢেলে দিল সে। দুই উরু দিয়ে হাতটাকে পিষে ফেললো অসহ্য সুখে। পেনিসটা মুখ থেকে বের করার সাথে সাথেই হয়ে গিয়েছে ওর, সাথে সাথে একটা সোঁদা গন্ধের সাথে ওর চিবুক, গলা আর বুকের ওপর উষ্ণ সিমেনের স্পর্শ পেল। সুখে যেন পাগল হয়ে গেল সে।হঠাৎ গায়ে ঠান্ডা বাতাস আর বৃষ্টির ছাঁটের স্পর্শ পেয়ে সচকিত হলো। পাশ থেকে টাওয়েলটা তুলে নিয়ে বাঁ হাতে আলতো করে বুকের ওপর ধরে উঠে দাঁড়ালো। মাসুদও ঠিক সেই সময় চোখ খুললো। দেখে জুঁই ওর সামনে নিজেকে আবার টাওয়েলে অর্ধেক ঢেকে দাঁড়িয়ে।“মাসুদ ভাই, আমি ডাকলে তার পর আপনার ভেজা জামাকাপড় নিয়ে বাথরুমে চলে আসেন।”জুঁই ঘুরে বাথরুমের দিকে রওনা হবার ঠিক আগে মাসুদ খেয়াল করলো জুঁইয়ের বাঁ হাতের দুটো আঙ্গুল ভেজা, আর থুতনির নিচ থেকে খানিকটা ঘন তরল গলা বেয়ে বুকের ভাজেভাঁজের ভেতর টাওয়েলের নিচে গিয়ে ঢুকেছে। নিজের সিমেনের গন্ধও নাকে এলো তার।এতো কিছু হয়ে যাবার পরও দুজনেই বুঝতে পারছে টাওয়েল দিয়ে শরীরের সামনেটা আড়াল করে রাখাটা আসলে অর্থহীন। টাওয়েলের ফাঁকা দিয়ে জুঁইয়ের উঁচু ব্রেস্টের অর্ধেক আর পেছন থেকে পুরো উলঙ্গ জুঁইকে দেখে মাসুদ টের পেল যে ওর পেনিস আবার জুঁইয়ের শরীর মন্থন করার জন্য রেডী হচ্ছে।নিতম্বের হালকা হিল্লোল তুলে হেঁটে হেঁটে জুঁই তার নগ্ন পিঠ আর খোলা নিতম্ব নিয়ে বাথরুমের ভেতর অদৃশ্য হয়ে গেল। আর মাসুদ স্বপ্নাহতের মতো পিঠে বৃষ্টির ঠান্ডা স্পর্শ নিয়ে জুঁইয়ের ডাকের অপেক্ষায় খোলা দরজার সামনে দাঁরিয়ে রইলো.. প্রিয়তমা ভাবীর