হ্যালো আমার নাম আইরিন পারভীন ঊষা‘‘ঊষা আমার ডাকনাম, আমি থাকি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায়আমার জন্ম হয়েছে ঢাকায়, যদিও আমার দেশের বাড়ি কুমিলাতে যেখানে আমার দাদা-দাদী থাকেনআর আমার বয়স যখন সবেমাত্র ১৩ বছর তখন আমার জীবনে এই ঘটনাটা ঘটে গেলআমার পিতা-মাতার দুকন্যার মধ্যে আমিই বড়, থাকতামও তাদের সঙ্গেইআমাদের পরিবারের অন্যদের সঙ্গে আমারও মাঝে মধ্যে দাদা-দাদীর কাছে কুমিলায় যাওয়ার সুযোগ হতোআমার বাবা ছিল হালকা-পাতলা গড়নের স্বাভাবিক উচ্চতার একজন মানুষআমার আর বাবার মধ্যে ছিল বিশেষ ধরনের একটা অলিখিত চুক্তি; সে যাই হোক, সেই মুহূর্তে বাবা-মেয়ের স্বাভাবিক সম্পর্ক সম্পুর্ণ ব্যতিক্রমী এক ধরনের বিশেষ কিছুতে পরিণত হয়েছিলতখনকার সময় বাবা ছিল সবেমাত্র চলিশ বছরে পা দিয়েছে, আর কাজ করতো সরকারের শুল্ক ও আবগারী বিভাগে
একদা, সম্পুর্ণ অপ্রত্যাশিতভাবে বাবা তাঁর চাকরিটা হারানোর ফলে আমাদের পরিবার নিদারুণ সংকটজনক পরিস্থিতির মধ্যে পতিত হলোআমি অবশ্য বাবার চাকরি হারানো পেছনে কী কারণ ছিল তা পরিস্কার জানি নাতবে বাবা যে খুবই কষ্টে-সুষ্টের মধ্যে পরিবারের ভরনপোষণ করতেন সেটা বুঝতে পারতামএকদিন বাবা আমাকে নিয়ে দাদা-দাদীর কাছে কুমিলায় বেড়াতে গেলেনসেখান থেকে বাবা ঢাকায় ফিরে গেলেও আমি সেখানেই রয়ে গেলাম, গ্রামের একটা স্কুলে ভর্তিও হলাম, আর দাদা-দাদীর সংসারে গোছগাছ, ধোয়া-মোছার কাজ-কামসহ নিত্যনৈমিত্তিক সবকিছুই করতে লাগলাম
দিনকতক পর, বাবা একদিন আমাকে দেখতে এসে সেখানে সে-রাতে থাকার মনস্থ করলোমনে হয় তখন রাত এগারোটার মত হবে, বাবা ঘরে এসে আমাকে সকাল সকাল ঘুমিয়ে পড়তে বললোএকই ঘরে আলাদা বিছানায় বাবাও শুয়ে পড়লোরাত তখন গভীর, আমি গাঢ় ঘুমে অচেতন, জানি না বাবা কথন যে আমার বিছানায় চলে এসেছেনÑÑসেই মুহূর্তে আমার ঘুম ভেঙ্গে গেল আর ল্য করলাম তিনি আমাকে খুবই ঘনিষ্ট হয়ে আদর করছেনÑÑ উনি মুখে কিছুই বললেন না, আমার জামা-প্যান্টিসহ ছোট্ট দেহটাকে শুধু শক্ত করে জড়িয়ে ধরে রইলেনআমি বিশ্বাস করতে পারছিলাম না তিনি আসলে কী করছেনএক সময় তিনি আমার জামার ভেতর হাত গলিয়ে দিয়ে ফুলকুঁড়ির মত বেড়ে ওঠা আমার স্তনযুগলে বুলাতে শুরু করলেনউনি যথন খুবই ধীরে ধীরে আমার সবেমাত্র উঁচু হয়ে ওঠা স্তনবৃন্তদ্বয়ে আদর করছিলেন তখন আমি তাকালামআর আমি আমার দুহাত আড়াআড়ি করে বুকের ওপর চেপে ধরে ব্যাপারটাকে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করতে লাগলাম
তাঁর পরনে ছিল লুঙ্গী আর ঢিলেঢালা জামাতখন সে টেনে আমার জামা খুলে ফেললো, আর আমার স্তনের বোঁটায় মুখ লাগিয়ে চাটতে শুরু করলোপুরো একটা স্তনই পারলে যেন গিলে খেয়ে ফেলে সেভাবে তাঁর মুখের ভেতর নিল, সেভাবেই রইলো কিছুণ, আর ধীরে ধীরে কেমন যেন একটা অদ্ভূ শব্দ বের হতে লাগলো তাঁর মুখ থেকেব্যাপারটা আমাকে এতই লজ্জিত করলো যে আমার মাথা থেকে পায়ের বুড়ো আঙ্গুল পর্যন্ত সর্বশরীর লাজে রাঙা হয়ে হয়ে উঠলোকী যে বলবো কিছুই আমি বুঝে উঠতে পারলাম না! একে তো এই ঘটনা আমার জীবনের প্রথমÑÑতার ওপর মনে হচ্ছিল তিনি ব্যাপারটা উপভোগ করছেন, তাঁর শরীরের কম্পন দেখে তো তাই মনে হচ্ছিলবাবা আমার স্তনবৃন্তের সবটুকু তাঁর মুখের মধ্যে পুরে নিয়ে আলতোভাবে আর আদরের ভঙ্গীতে এমনভাবে চুষতে লাগলো যে আমার হৃস্পন্দন শুরু হয়ে গেলসেই চোষণ আর লেহনে স্তনের গোড়ায় এক ধরনের ব্যথার মত অনুভূতিতে আমি ‘‘উহ্, আঃ শব্দ করতে লাগলামতারপর সে যখন আরও অগ্রসর হয়ে তাঁর উন্মুক্ত হাতখানা আমার তলপেটে রাখলো তখন আমার দুচোখ ভরে উঠলো অশ্রতেতাঁর হাতের আঙ্গুলগুলো যখন আমার ডান স্তনের চারপাশে ঘুরছিল তখন মনে হচ্ছিল সেই হাত যেন বরফের মতন হীমশীতল আর তাতে স্তনের বোঁটা অনেকটাই দৃঢ় হয়ে উঠলো, অবশ্য আমার তাতে সায় ছিল তেমন কিছু নয়আমার কানের কাছে তাঁর উষ্ণ শ্বাস-প্রশ্বাস নাড়া দিচ্ছিলতাঁর একটা হাত এসে যখন আমার বামস্তনটা মঠোর মধ্যে ধরে চাপ দিয়ে টিপতে লাগলো তখন নিজের অজ্ঞাতেই আমার গলার ভেতর থেকে ‘‘আঃ শব্দ বেরিয়ে গেল সেই সাথে ভাললাগার অনুভূতিও টের পেলামস্তনবৃন্তের সেই অনুভূতি মনে হচ্ছিল শরীরের ভেতরের কোনও সুইচে গিয়ে পৌঁছালো, সাথে সাথে আমার মনে হতে লাগলো স্তনের বোঁটাগুলো যেন কীভাবে আস্তে আস্তে শক্ত ও বড় হয়ে উঠছেতাঁর এক হাত দিয়ে ধরে ছিল আমার স্তন আর অন্য হাত ছিল আমার তলপেটের উপর বুলাতে ব্যস্ত, আর অনবরত চুম্বন করে যাচ্ছিল কাঁধে ও ঘাড়েআমার দুপা ছিল দুদিকে সামান্য ছড়ানো, অতঃপর তাঁর একটা হাত আরও অগ্রসর হয়ে গিয়ে তলপেটের নিম্নে সেই উঁচু জায়গাটায়তাঁর শীকারধ্বনী শোনা পর্যন্ত আমি আগে থেকে বুঝতেই পারিনি যে আমার দুপা দুদিকে ছড়ানো অবস্থায় আছেতাই মনে পড়ার সাথে সাথে দুপা একত্রিত করে শক্তভাবে হাঁটুর সঙ্গে হাঁটু সন্বিবেশ করে ধরে থাকলামদুহাঁটু শক্ত করে রাখলাম পরিস্থিতি অনুমান করে আর কিছুটা অজানিত শংকায়কিন্তু সে আরও কিছুণ ধরে আমার দুস্তন নিয়ে নাড়াচাড়া, টেপাটিপি আর চাপাচাপি করে চললো এবং এক সময় উঠে নিজের বিছানার উদ্দেশ্যে চলে গেল সেরাতের মত
এটা ঠিক তাঁর শরীর আমাকে কিছুটা যৌন সুড়সুড়ি দিয়েছিলসেই অনুভূতিটা ছিল সত্যিই অপূর্ব! এক ধরনের সুড়সুড়িবোধ, কিন্তু আসলে তা নয়ÑÑএরকমএক ধরনের প্রচন্ড ভালোলাগার অনুভূতি, যা বর্ণনা করা যায় না, তবে ভালো নিঃসন্দেহেআমি এখন পর্যন্ত বিশ্বাস করতে পারছি না যে, এইমুহূর্তে কী ঘটলো এবং এর শেষটা কী হবে তা দেখার জন্য মনটা কেমন যেন উদ্গ্রীব হয়ে উঠলো…যদি সে আরও দুএক রাত এখানে অতিবাহিত করেÑÑআমি মনে মনে ভাবলামকিন্তু যখন সকালে ঘুম থেকে জেগে দেখি বাবা ঢাকায় চলে গেছে
বাবার সঙ্গে আমার সেই বিশেষ সম্পর্কের এটা ছিল সবেমাত্র শুরুপরে, আমার চিন্তা-ভাবনাগুলো যে যৌক্তিক ছিল তা নয়, কেবলি মনে হতে লাগলো উনি নিজের মুখ দিয়ে এই স্তন নিয়ে এটা কী করলেন! আমি বুঝতে পারছিলাম না যে আমি আসলে কোথায় রয়েছিচরম আশ্চর্যান্বিত হয়ে পরলাম যে, তিনি যখনই গ্রামে আমাকে দেখতে আসতেন রাতের বেলার সেই সুযোগটা নিতে কখনো তাঁর ভুল হতো নাতিনি ঠিকই আমার বিছানায় আসতেন একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি করতেনআমার সারা শরীরে চলতো অসংখ্য চুম্বন, আমার স্তন দুটো মুখে পুরে নিয়ে প্রায় নিঃশব্দে চলতো শীকারধ্বনিসেই অন্ধকারের মধ্যেও যেন আমি দেখতে পেতাম সুখের আবেশে তাঁর চোখ দুটি থাকতো মুদ্রিত, আর যখন আমার সর্বাঙ্গে চুমুর ঝড় বয়ে যেতো